ইমরানের মুখে ট্রাম্পের প্রশংসা

বাংলাদেশ  মেইল::

যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাচনের আগেই দেশটির প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের ভূয়সী প্রশংসা করলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্পের সঙ্গে নিজের সাদৃশ্য টেনে তিনি বলেন, রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের চূড়ায় পৌঁছানোর জন্য আমাদের উভয়কেই অনেক ‘আউট-অব-দ্য-বক্স’ চিন্তা করতে হয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্টকে নিয়ে তিনি আরো বলেন, ট্রাম্প সাধারণ রাজনীতিকদের মতো নন। তিনি তার নিজের নিয়মে খেলেন। এ খবর দিয়েছে (দ্য নিউজ ইন্টারন্যাশনাল)।

আর দু’ দিন বাদেই যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। নির্বাচনে দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য ডেমোক্রেট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের বিরুদ্ধে লড়বেন ট্রাম্প। নির্বাচনী হাওয়া জোরেশোরে বইতে শুরু করেছে। একাধিক জনমত জরিপে দেখা গেছে, বাইডেন জয়ী হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে আছেন।কিন্তু, সম্প্রতি জার্মান পত্রিকা দের স্পাইগেলের প্রতিবেদক সুজান কোলবলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইমরান বলেন, জনমত জরিপে বাইডেন এগিয়ে আছেন।

কিন্তু ডনাল্ড ট্রাম্পের জয়ের সম্ভাবনাও রয়েছে। কারণ, তিনি সাধারণ রাজনীতিকদের মতো নন। তিনি নিজস্ব নিয়মে খেলেন। তার এ মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় কোলবল বলেন, শুনে মনে হচ্ছে আপনি প্রশংসা করছেন।

ইমরান আরও বলেন, পাকিস্তানে ২২ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল গঠনকারী রাজনীতিক হয়ে উঠতে তাকে অনেক ‘আউট অব দ্য বক্স’ বা প্রচলিত ধারণার বাইরে চিন্তা করতে হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমাদের অত্যন্ত অপ্রচলিত উপায় ভাবতে হয়েছে। কিছু দিক দিয়ে ডনাল্ড ট্রাম্পও সেভাবেই চিন্তা করেছেন।’

তিনি বাইডেন ও ট্রাম্পের মধ্যে কার সঙ্গে কাজ করতে ইচ্ছুক—এমন প্রশ্নের জবাবে ইমরান বলেন, আমরা আসলে চাই যে, যুক্তরাষ্ট্র আমাদের ও ভারতকে সমান চোখে দেখুক। বিশেষ করে, কাশ্মীর ইস্যুতে। তিনি ওই অঞ্চলটিকে ‘হটস্পট’ হিসেবে বর্ণনা করে বলেন, এটি যেকোনো সময় জ্বলে উঠতে পারে।

পাক-প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাষ্ট্র মনে করে চীনকে দমিয়ে রাখতে পারবে ভারত। এটা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। ভারত তার প্রতিবেশী দেশগুলো—চীন, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা— ও আমাদের জন্য হুমকিজনক।

এই উপমহাদেশে ওই দেশটির সরকার সবচেয়ে চরমপন্থি ও জাতিবিদ্বেষি। এটা ১৯২০ ও ’৩০ এর দশকের নাৎসিবাদ থেকে উদ্বুদ্ধ একটি ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্র।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের স্বরুপ আজ প্রকাশ পেলো, উড়োনচন্ডী স্বভাবের সিজনাল পলিটিশিয়ান ডোনাল্ড ট্রাম্পের যথেষ্ট মিল কারন ইমরান খান নিজেও একজন সিজনাল পলিটিশিয়ান পাশাপাশি দুজনেই প্রাক্তন ক্যাসানোভা, ইমরান তার জাতশত্রু চিনতেও ভুল করেন যেমন ট্রাম্প এখনো সদর্পে বলেন আমার রাজনৈতিক গুরু বিশ্বস্ত বন্ধু ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যার জন্য আমার জান কোরবান আর ইমরান সে ট্রাম্পের ভালো চাহেন! ইমরানকে রাজনৈতিক পারদর্শিতা শিখতে জার্মানির চ্যাঞ্চেলর এন্জেলা মার্কেল অথবা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শরণাপন্ন হওয়া উচিত।

পাক-প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাষ্ট্র মনে করে চীনকে দমিয়ে রাখতে পারবে ভারত। এটা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। ভারত তার প্রতিবেশী দেশগুলো—চীন, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা— ও আমাদের জন্য হুমকিজনক।