বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী মীর নাছিরকে কারাগারে প্রেরণ

বাংলাদেশ মেইলঃঃ  

আদালতে আত্মসমর্পণ করার পর দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী ও চট্রগ্রামের সাবেক মেয়র মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দীন ওয়ান-ইলেভেনের একটি মামলায় জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরন করা হয়েছে। রোববার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-২ এ আত্মসমর্পণ করেন তিনি। এসময় বিচারক এসএম রুহুল ইমরান তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

রবিবার (৮ নভেম্বর ) আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-২-এর বিচারক এ এস এম রুহুল ইমরান এই আদেশ দেন। আসামিপক্ষের আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন,‘দুর্নীতির মামলায় মীর নাসিরকে বিচারিক আদালতের দেওয়া ১৩ বছরের কারাদণ্ড এবং মীর হেলালকে দেওয়া তিন বছরের কারাদণ্ড বহাল রেখে গত বছরের ১৯ নভেম্বর রায় দেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের এই রায় বিচারিক আদালতে পৌঁছার তিন মাসের মধ্যে তাদের সেখানে (বিচারিক আদালত) আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। ওই আদেশ মোতাবেক আসামি মীর মোহাম্মদ নাসির আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে বিচারক তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।’

গত ২৭ অক্টোবর তার ছেলে মীর মোহাম্মদ হেলাল আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-২-এর বিচারক এ এস এম রুহুল ইমরান জামিন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।তিনি জামিন পেয়ে কারা গার থেকে বের হয়ে আসেন ।

২০০৭ সালের ৬ মার্চ অবৈধ সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে মীর নাসির ও তার ছেলে মীর হেলালের বিরুদ্ধে রাজধানীর গুলশান থানায় দুদক মামলা করে।এ মামলায় আদালত মীর নাসিরকে ১৩ বছর ও মীর হেলালকে ৩ বছরের কারাদণ্ড দেন।

বিচারিক আদালতের ওই রায়ের বিরুদ্ধে মীর নাসির ও মীর হেলাল হাইকোর্টে পৃথক আপিল করেন। ২০১০ সালের আগস্টে হাইকোর্ট মীর নাসির ও মীর হেলালের সাজা বাতিল করে রায় দেন।

হাইকোর্টের রায় বাতিল চেয়ে আপিল আবেদন করে দুদক। শুনানি নিয়ে ২০১৪ সালের ৩ জুলাই আপিল বিভাগ হাইকোর্টের দেওয়া রায় বাতিল করেন। একইসঙ্গে বিচারিক আদালতের সাজার বিরুদ্ধে বাবা-ছেলের করা পৃথক আপিল হাইকোর্টে পুনরায় শুনানির নির্দেশ দেওয়া হয়। শুনানি শেষে গত বছরের ১৯ নভেম্বর হাইকোর্ট রায় দেন।