বিতর্কিতরা বাদ, চট্টগ্রাম থেকে ৯জন যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে

বাংলাদেশ মেইল ::

যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে চট্টগ্রাম মহানগরের বিতর্কিত নেতাদের কেউ স্থান পাননি। নগরের শীর্ষ যুবলীগ নেতাদের অনুসারীরাও স্থান পাননি এ কমিটিতে। নতুন কমিটিতে বাদ পড়েছেন যুবলীগের গত কমিটির বিতর্কিত নেতারা। পাশাপাশি বয়স ৫৫ বছরের বেশি হওয়ায় বাদ পড়েছেন ৭০ জনের বেশি।

আওয়ামী লীগের অন্যতম সহযোগী সংগঠন যুবলীগের সদ্য ঘোষিত কেন্দ্রীয় কমিটিতে চট্টগ্রামের ৯ জন বিভিন্ন পদে মনোনীত হয়েছেন।

কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য মো. মোনায়েম খান এবং চন্দনাইশের গাছবাড়িয়া কলেজের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ,   দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য ও পটিয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহিম যুবলীগের নতুন কমিটিতে উপ-ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মনোনীত হয়েছেন।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় যুবলীগের ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। নতুন এই কমিটিতে স্থান পেয়েছেন চট্টগ্রামের ৯ জন নেতা। এদের মধ্যে তিনজন যুবলীগের গত কেন্দ্রীয় কমিটিতেও ছিলেন।

চট্টগ্রামের পটিয়ার সন্তান যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বদিউল আলম নতুন কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হয়েছেন।

সিটি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক আবু মুনির মো. শহীদুল হক রাসেল নতুন কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক মনোনীত হয়েছেন।

যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক উপ কৃষি ও সমবায় সম্পাদক মীর মো. মহিউদ্দিন নতুন কমিটিতে পেয়েছেন তথ্য ও গবেষণা সম্পাদকের পদ।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি আদিত্য নন্দী নতুন কমিটির উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মনোনীত হয়েছেন।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও সাতকানিয়া পৌর আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন মিন্টু যুবলীগের নতুন কমিটিতে সহ-সম্পাদক মনোনীত হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য নিয়াজ মোর্শেদ এলিট নতুন কমিটিতে নির্বাহী সদস্য পদে স্থান পেয়েছেন।

এছাড়া কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনজুর আলম শাহিন নতুন কমিটিতে প্রেসিডিয়াম সদস্য মনোনীত হয়েছেন।

চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির বিভিন্ন নেতাকে যুবলীগের নতুন কমিটির পদ দেবার কথা থাকলেও শেষ মুহুর্তের সিদ্ধান্তে পাল্টে গেছে হিসেবে নিকেশ। ভূমিদখল ও টেন্ডারবাজিসহ নানা অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগে কেন্দ্রীয় কমিটিতে রাখা হয়নি মহিউদ্দিন বাচ্চু’র কোন অনুসারীকে। বাদ পরেছেন গত কমিটি উপ অর্থ সম্পাদক হেলাল আকবর চৌধুরী বাবরের অনুসারীরাও।

এর আগে ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। যুবলীগের সপ্তম কংগ্রেসে সংগঠনটির সভাপতি পদে আসেন শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক পদে আসেন মাঈনুল হোসেন খান নিখিল।