টানা দুই সপ্তাহ ধরে নিম্নমুখী পুঁজিবাজার

বাংলাদেশ মেইল ::

দেশের পুঁজিবাজারে টানা দুই সপ্তাহ ধরে নিম্নমুখিতা বিরাজ করছে। দুই সপ্তাহে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সার্বিক সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৬২ পয়েন্ট। আর টানা দুই সপ্তাহের পতনে বাজার মূলধন কমেছে ৪ হাজার ৭৪১ কোটি টাকা।

বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, সাম্প্রতিক সময়ে কাছাকাছি সময়ে বেশ কয়েকটি কোম্পানির প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) শেয়ারে বিনিয়োগের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের তহবিলের একটি অংশ আটকে গেছে। এতে গত দুই সপ্তাহে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ সক্ষমতা কমেছে। এ সময়ে বেশকিছু কোম্পানি স্পট মার্কেটে ছিল। চলতি ২০২০-২১ হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বেক্সিমকো লিমিটেডের মুনাফা কমার কারণে কোম্পানিটির শেয়ারদর কমেছে, যা সূচকের পতনে ভূমিকা রেখেছে। এছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট দর বাড়ার কারণে অনেকেই এ খাতে বিনিয়োগে ঝুঁকেছেন। কিন্তু মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট দর বাড়া বা কমার প্রভাব সূচকে প্রতিফলিত হয় না। সব মিলিয়ে এ সময়ে ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ সক্ষমতা কমেছে এবং তারা শেয়ার কেনার চেয়ে বিক্রি করেছেন বেশি, যার প্রভাব পড়েছে সার্বিক সূচকে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে লেনদেনের শুরুতে ডিএসইএক্স ছিল ৪ হাজার ৯৪২ পয়েন্টে। ১২ নভেম্বর সপ্তাহ শেষে সূচকটি ৪ হাজার ৯০৫ পয়েন্টে অবস্থান করছিল। গেল সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে ৪ হাজার ৯০৫ পয়েন্ট নিয়ে লেনদেন শুরু হলেও সপ্তাহ শেষে সূচকটি কমে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৮৮০ পয়েন্টে। ডিএসইএক্সের পাশাপাশি এ সময়ে ডিএসইর ব্লু চিপ সূচক ডিএস-৩০ এবং শরিয়াহভিত্তিক সূচক ডিএসইএসও পয়েন্ট হারিয়েছে।

আগের সপ্তাহে দৈনিক গড় লেনদেন প্রায় ৮ শতাংশ বাড়লেও গেল সপ্তাহে ডিএসইর দৈনিক গড় লেনদেন ১৪ শতাংশ কমেছে। গত সপ্তাহে স্টক এক্সচেঞ্জটিতে প্রতি কার্যদিবসে গড়ে ৭৮১ কোটি ৮২ লাখ টাকার সিকিউরিটিজ হাতবদল হয়, আগের সপ্তাহে যা ছিল ৯১১ কোটি ২৮ লাখ টাকা। পাঁচ কার্যদিবসে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৩ হাজার ৯০৯ কোটি ১০ লাখ টাকা, আগের সপ্তাহে যা ছিল ৪ হাজার ৫৫৬ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৬৪টি কোম্পানি, মিউচুয়াল ফান্ড ও করপোরেট বন্ডের মধ্যে সপ্তাহ শেষে দর বেড়েছে ৯৯টির, কমেছে ১৯৯টির, অপরিবর্তিত ছিল ৬৩টির, আর লেনদেন হয়নি তিনটির।

এদিকে গত সপ্তাহে ডিএসইতে দরপতনে শীর্ষে ছিল সিএপিএম বিডিবিএল মিউচুয়াল ফান্ড ওয়ান, এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ড, এশিয়ান টাইগার সন্ধানী লাইফ গ্রোথ ফান্ড, এসইএমএল আইবিবিএল শরিয়াহ ফান্ড, প্রাইম ফিন্যান্স ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, এসএস স্টিল লিমিটেড, ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি ফাইন্যান্স মিউচুয়াল ফান্ড, এক্সপ্রেস ইন্সুরেন্স ও হামিদ ফ্যাব্রিকস লিমিটেড।

দেশের আরেক পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গত সপ্তাহে সিএসসিএক্স সূচক ৬০ পয়েন্ট কমে গত বৃহস্পতিবার লেনদেন শেষে ৮ হাজার ৪১১ পয়েন্টে অবস্থান করছে। সিএসইতে পাঁচ কার্যদিবসের লেনদেনে মোট ১১২ কোটি ৩ লাখ টাকার সিকিউরিটিজ হাতবদল হয়েছে, আগের সপ্তাহে যা ছিল ১৫০ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। লেনদেন হওয়া ৩১৩টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭২টির, কমেছে ১৭৬টির, আর অপরিবর্তিত ছিল ৬৫টির বাজারদর।