আনোয়ারায় কর্মস্হল থেকে ফেরার পথে ধর্ষণের শিকার তরুণী, গ্রেপ্তার-১

বাংলাদেশ মেইল

আনোয়ারায় কর্মস্হল কোরিয়ান ইপিজেড থেকে ফেরার পথে এক তরুনী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। সোমবার( ২৮ ডিসেম্বর) রাতে উপজেলার বারখাইন ইউনিয়নের মধ্যম শিলাইগড়া গ্রামে ধর্ষণের এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ওই তরুণী বাদী হয়ে সোমবার রাতে আনোয়ারা থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ অভিযানে নামেন। রাতেই পুলিশ ধর্ষক মো. আরমান হোসেন (২০)কে গ্রেপ্তার করলেও তার সহযোগী মো. রাশেদ(৪০) পলাতক রয়েছে।
গ্রেপ্তারকৃত মো. আরমান হোসেন
বারশত ইউনিয়নের দিঘীর পাড় এলাকার আব্দুর রহমানের পুত্র বলে জানা গেছে।
ধর্ষিতাকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য চট্রগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ধর্ষিতা ওই নারী প্রতিদিনের ন্যায় সিএনজি অটোরিক্সা যোগে কর্মস্থল থেকে রাড়ি ফিরছিল।পথিমধ্যে ওৎপেতে থাকা আরমান সিএনজি চালকের সহযোগিতায় ওই নারীকে বারখাইন ইউনিয়নের মধ্যম শিলাইগড়া গ্রামে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

পরে ভুক্তভোগী ওই নারী আনোয়ারা থানায় এসে মো. আরমান হোসেন ও শিলাইগড়া গ্রামের মোঃ রাশেদ (৪০)কে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করলে পুলিশ আরমানকে গ্রেপ্তার করে এবং ধর্ষণের কাজে ব্যবহৃত একটি সিএনজি অটোরিকশাটিও জব্দ করে

আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসএম দিদারুল ইসলাম সিকদার জানান,
ভুক্তভোগী ওই নারী মামলা পরেই অভিযান চালিয়ে আমরা ধর্ষককে গ্রেপ্তার করি। ধর্ষণ কাজে ব্যবহৃত একটি সিএনজি অটোরিকশাটি জব্দ করে আদালতে প্রেরণ করেছে। পলাতক আসামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।ভিকটিমের ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য চট্রগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।