ওয়াশিংটন ডিসিতে কার্ফু জারি

বাংলাদেশ মেইল ::

রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসি অবরুদ্ধ করে রেখেছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকেরা। পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। শহরের অবস্থা বেগতিক দেখে কার্ফু জারি করেছেন শহরের মেয়র। বুধবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা পর্যন্ত কার্ফু বলবৎ থাকবে।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকরা অস্ত্র নিয়ে প্রবেশ করে ওয়াশিংটন ক্যাপিটাল বিল্ডিংয়ে। কংগ্রেস নভেম্বর নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে বিতর্ক করছিল তখন। বলা হচ্ছে ইটা জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হওয়া থেকে বিরত রাখার জন্যই এই তান্ডব। পুরো শহরে বিশৃঙ্খলা। ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে পুলিশ সরিয়ে নিয়েছে। পরে ওয়াশিংটনের মেয়র কারফিউ ঘোষণা করেছেন। আমেরিকার ইতিহাসে এমন ঘটনা নজিরবিহীন। দেশটি এখন অশান্তিতে, অনিশ্চয়তায়।

এসময় একজন মহিলা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। ট্রাম্প হোয়াইট হাউজের সামনে দাঁড়িয়ে হাজার হাজার সমর্থকদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দেয়ার পরপরই বিশৃঙ্খলা শুরু হয়।

রিপাবলিকান সিনেটররা বলেছেন ঘটনাটি আমেরিকার জন্য লজ্জাজনক। হোয়াইট হাউস ন্যাশনাল গার্ড এবং অন্যান্য ফেডারেল বাহিনী মোতায়েন করা হচ্ছে। এতো কিছুর পরও সমর্থকদের বাড়ি ফিরতে বলছেন না ট্রাম্প।

দিনের শুরুতে ট্রাম্প সমর্থকরা ক্যাপিটলহিলের ভিতরে ঢুকে তান্ডবে মেতে উঠে । ঘটনার আকষ্মিকতায় হাউস কার্যক্রম বন্ধ রেখে সকলকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

বিক্ষোভ দেখাতে গিয়ে সিনেট প্রেসিডেন্টের চেয়ারে একজন উগ্র ট্রাম্প সমর্থককে বসে পড়তে দেখা যায়। এসময়  নিরাপত্তা বাহিনী অস্ত্র উচিয়ে পরিস্থিতি দমনের চেষ্টা করে।

সিনেট প্রেসিডেন্টের চেয়ার বসে পড়েছে একজন উগ্র ট্রাম্প সমর্থক! নিরাপত্তা বাহিনী অস্ত্র উচিয়ে পরিস্থিতি দমনের চেষ্টা করছে।

ট্রাম্প-সমর্থক রক্ষণশীলরা আজ বুধবার ( ৬ জানুয়ারি) ওয়াশিংটন ডিসিতে ব্যাপক সমাবেশের ডাক দেন। ট্রাম্প নিজেই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, এই সমাবেশ শান্তিপূর্ণ হবে না। বিরাজমান পরিস্থিতিতে নতুন করে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে আমেরিকার রাজনৈতিক মহলে।

সিএনএন গেল বুধবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ট্রাম্প তাঁর অবকাশ সংক্ষিপ্ত করে ফ্লোরিডা থেকে হোয়াইট হাউসে ফিরে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

ক্রিসমাস ও নিউ ইয়ার পালনের জন্য ট্রাম্প ফ্লোরিডার মার-এ-লাগো-তে অবকাশ কাটাতে যান। নানা নাটকীয়তার পর সেখানে বসেই তিনি নাগরিক প্রণোদনা আইনে স্বাক্ষর করেন। ট্রাম্প সমর্থকরা আজকের কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশন সামনে রেখে ঝামেলা পাকানোর জোর প্রয়াস চালাচ্ছেন।