ইসিতে অভিযোগের পরপর নাগরিক ঐক্য পরিষদের কার্যালয়ে পুলিশি হয়রানির অভিযোগ

বাংলাদেশ মেইল ::

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করার কারনে নাগরিক ঐক্য পরিষদের কার্যালয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়েছে-এমন অভিযোগ পরিষদের নেতাদের। শনিবার (২৩ জানুয়ারি)  বিকালে চট্টগ্রাম নাগরিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক একরামুল করিম চৌধুরীর নেতৃত্বে রিটার্নিং কর্মকর্তা হাসানুজ্জামানের স্টাফ অফিসার মোহাম্মদ বেদারুল ইসলামের কাছে একটি অভিযোগপত্র জমা দেন। তাঁর সাক্ষরিত অভিযোগপত্রে উল্লেখ আছে বিএনপির নেতাকর্মী ও নির্বাচনী এজেন্টদের বিনা কারণে গ্রেফতার করছে পুলিশ। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রশাসক পদে বহাল থেকেও নৌকার প্রার্থীর জন্য ভোট চাইছেন খোরশেদ আলম সুজন – এমন অভিযোগও নাগরিক ঐক্য পরিষদের।

একদিকে সরকার দলীয় প্রার্থী সকল সুযোগ সুবিধা ভোগ করছে। সরকারের এমপি মন্ত্রীরা নগরীর বিভিন্ন হোটেলে এসে বৈঠক করছে এবং নির্বাচনকে প্রভাবিত করছে। এভাবে নির্বাচনের নামে নির্যাতন সহ্য করা হবে না। পুলিশ দিয়ে বাড়ী বাড়ী গিয়ে সীমাহীন হয়রানি থেকে পালিয়ে পালিয়ে নির্বাচন করা যায় না। নির্বাচনে ইভিএম মেশিনে ব্যবহৃত মেমোরি কার্ডের সুরক্ষার জন্য ব্যবস্থা নিতে তিনি জোর দাবী জানান তারা।

এদিকে, চট্টগ্রাম নাগরিক ঐক্য পরিষদের যুগ্মআহ্বায়ক আহম্মদ খলিল খান, নিপার চৌধুরী, এডভোকেট ফজলুল হক, সৌরভ প্রিয় পালের উপস্থিতিতে অভিযোগপত্রটি জমা দেওয়ার কয়েকঘন্টা পরপরই সন্ধ্যা আনুমানিক ৭ঃ৩০ টার সময় চকবাজার থানার একটি টিম চট্টগ্রাম নাগরিক ঐক্য পরিষদের চট্টেশ্বরী অফিসে গিয়ে পাঁচ জনকে আটক করে। পরে চকবাজার থানায় নিয়ে আটককৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞেসাবাদের পর ছেড়ে দেওয়া হয়।