বিএনপির নেতাকর্মী ও এজেন্টদের রাতের আঁধারে গ্রেফতার করা হচ্ছে- ইসিতে নাগরিক ঐক্যের অভিযোগ

বাংলাদেশ মেইলঃঃ

আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপির নেতাকর্মী ও এজেন্টদের রাতের আঁধারে গ্রেফতার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে নাগরিক ঐক্যে পরিষদ।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) রবিবার রিটার্নিং কর্মকর্তা হাসানুজ্জামানের কাছে নাগরিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক একরামুল করিম স্বাক্ষরিত দুটি অভিযোগ জমা দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগপত্র দুটি চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি সৌরভ প্রিয় পাল হাসানুজ্জামানের স্টাফ অফিসারের কাছে জমা দেন আজ সন্ধ্যায়।

এতে অভিযোগ করা হয় রাতের আঁধারে বিএনপির নেতাকর্মী ও এজেন্টদের বাড়ী বাড়ী গিয়ে অভিযান ও গ্রেফতার চালানো হচ্ছে। কাউকে ঘরে থাকতে দিচ্ছে না পুলিশ প্রশাসন। অথচ এরা কেউ এজাহারভুক্ত বা ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি নয়। গত রাত হতে এ পর্যন্ত প্রায় ১৩ জনের ও অধিক আমাদের দলীয় নেতাকর্মী ও এজেন্ট দের বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে আটক করেছে বিভিন্ন থানা পুলিশ। আটককৃতরা হচ্ছেন ২২ নং এনায়েত বাজার ওয়ার্ড এর নওশাদ, ২১ নং জামালখান ওয়ার্ডের নূর হোসেন, ৭ নং পশ্চিম ষোলশহর ওয়ার্ড এর লোকমান ও জসু, ৬ নং পূর্ব ষোলশহর ওয়ার্ড এর মামুন ও দিদার, ৫ নং মোহরা ওয়ার্ডের গোলাপ, ৪০ নং উত্তর পতেঙ্গা ওয়ার্ডের হোসেন ও সোহান, ১৮ নং পূর্ব বাকলিয়া ওয়ার্ড এর ইউনূসসহ ৩৫ নং বক্সীরহাট ওয়ার্ডের তিনজনসহ অনেক‌কেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
অভিযোগে আরো উল্লেখ আছে, গতকাল সরকারদলীয় মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম আবারও নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা এবং গাড়িবহরের শোডাউন দিয়ে প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেছেন, যা বারবার নির্বাচনী আচরণ বিধি সুনির্দিষ্টভাবে লংঘন। উপরের বিষয়গুলো নিয়ে হাসানুজ্জামানকে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানানো হয় অভিযোগপত্রে। নাহলে এই অবস্থা চলমান থাকলে, নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ছাড়া আমাদের অন্য কোন উপায় থাকবেনা বলে হুমকিও দেওয়া হয়। গতকাল চট্টগ্রাম নাগরিক ঐক্য পরিষদের অস্থায়ী কার্যালয়ে চকবাজার থানার অভিযান এবং পাঁচজনকে গ্রেফতারের ব্যাপারও অভিহিত করা হয়।