চট্টগ্রামে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষন, গ্রেফতার ৩

বাংলাদেশ মেইল ::

গার্মেন্টসকর্মীকে ঘর দেখানোর কথা বলে স্বামীকে বেঁধে রেখে গণধর্ষণ করা হয়েছে —এমন অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ৩ যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

যদিও ওই তিন যুবকের দাবি, টাকার বিনিময়ে উভয়ের সম্মতিতেই এ কাজ হয়েছে।

শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বন্দর থানা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন— ভোলার বেলুমিয়ার চর এলাকার মৃত বাদশা মিয়ার পুত্র জামাল হোসেন (৩০), দৌলতপুর থানার চরপাতা এলাকার আবদুল জলিলের পুত্র মো. মানিক (২৪) ও ভেদুরিয়া এলাকার নুরুল ইসলামের পুত্র মো. মনির হোসেন (২০)।

এদিকে অভিযুক্তদের দাবি, ১৫শ টাকার বিনিময়ে এ কাজের কন্ট্রাক্ট হয় ওই নারীর সাথে। এরপর ওই নারী দুইশত টাকা বেশি চাওয়ায় তারা দিতে অস্বীকার করে৷ তাই তাদের ফাঁসিয়ে দেয়া হয়েছে।

পুলিশ জানায়, ৯৯৯ এ সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগের ফোন পেয়ে অভিযান চালিয়ে ৩ যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। যদিও তার স্বামীর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছেনা ঘটনার পর থেকে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) বন্দর জোনের সহকারী কমিশনার কীর্তিমান চাকমা বলেন, ‘আসামিদের গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাবাদ করা হয়েছে এবং তারা ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। তবে তাদের দাবি, তারা গ্যাং রেপ করেনি। ১৫শ টাকার কন্টাক্ট হয়েছিলো তাদের মধ্যে। ২শ টাকা বাড়তি চেয়ে না পাওয়ায় ভিকটিম তাদের ফাঁসাচ্ছে।’

‘তাকে ও তার স্বামীকে আনা হচ্ছে থানায়। পাশাপাশি আসামিদেরও মুখোমুখি করা হবে। ধর্ষণ হয়েছে নিশ্চিত কিন্তু এটা কি জোর পূর্বক গ্যাং রেপ নাকি কন্ট্রাক্ট রেপ তা নিশ্চিত হতে হবে। এরপর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’—যোগ করেন তিনি।

ভিকটিম বর্তমানে চমেকের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে রয়েছে বলেও জানান তিনি।