পাঁচ দিনের প্রেমে ব্যাংক কর্মকর্তা খোসালেন ২ লক্ষ টাকা

বাংলাদেশ মেইলঃঃ

 

চট্টগ্রামের হালিশহর থানাধীন শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের হালিশহর ব্রাঞ্চের সিনিয়র অফিসার শামীম হাসান (৩৭) ৫ দিনের প্রমের সম্পকে জড়িয়ে স্বীকার হয়েছেন প্রতারণার। সন্ত্রাসীদের হাতে জিম্মি হয়ে খুঁইয়েছেন দুই লাখ টাকা।

এই ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় গত বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) রাতে নগরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে জড়িত চারজনকে গ্রেফতার করেছে বাকলিয়া থানা পুলিশ।
গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন- মো. শহিদ আলম লেদু (৩০), মো. রায়হান (২৮), মো. গিয়াস উদ্দীন (২৯), মো. জাহাঙ্গীর আলম (৩০)।

জানা যায়, পরিচিত গ্রাহকের কাছ থেকে এক নারীর মোবাইল নম্বর পান তিনি। মোবাইলে কথা বলতে বলতে জড়িয়ে পড়েন প্রেমের সম্পর্কে। মাত্র পাচদিনের পরিচয়ের সূত্রে প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েই ফেঁসেছেন তিনি।

বাকলিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মো. মঈনুদ্দিন বলেন, ‘ব্যাংক কর্মকর্তা শামীম হাসান তার এক গ্রাহকের মাধ্যমে অজ্ঞাত ওই নারীর মুঠোফোন নম্বর পান। অল্প সময়েই তিনি ওই নারীর সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চ পর্যন্ত মুঠোফোনে কথা বলার পর ৫ মার্চ দু’জনে দেখা করা দিন ঠিক করেন।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘ওই নারীর কথা মতো ব্যাংক কর্মকর্তা শামীম ৫ মার্চ বিকেল ৪ টায় নগরের রাহাত্তরপুল এলাকায় পৌঁছান। এসময় নারীর কথামত রায়হান নামে যুবকের সঙ্গে তিনি বাকলিয়া চান্দাপুকুরস্থ বিসমিল্লাহ টাওয়ারের পিছনে খালি জায়গায় যান। সেখানে পৌঁছালে পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা ব্যাংক কর্মকর্তা শামীমকে ঘিরে ধরে এবং নারীর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক করতে এসেছে বলে অপবাদ দেয়। তারা ব্যাংক কর্মকর্তাকে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল শুরু করে’।

বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ রুহুল আমীন বলেন, ‘মূলত এরা একটি সংঘবদ্ধ চক্র, যারা অর্থ আদায়ের জন্য সেখানে জিম্মি করে। এ সময় সন্ত্রাসীরা অজ্ঞাত ওই নারীর সঙ্গে অবৈধ সর্ম্পক আছে বলে স্থানীয় লোকজন জড়ো করে হেনস্থা করার হুমকি দেয় এবং মেয়েসহ পুলিশের কাছে ধরিয়ে দিবে বলে হুমকি দিয়ে ব্যাংক কর্মকর্তার কাছ থেকে দুই লাখ টাকা দাবি করে।’

‘এতে শামীম হাসান রাজী না হলে ছোরা ও অস্ত্র বের করে ব্যাংক কর্মকর্তাকে হত্যার হুমকি দেয়। তখন শামীম হাসান প্রাণভয়ে ছোট ভাইকে ফোনে বিপদের কথা বলে দুই লাখ টাকা পাঠাতে বলেন। তার কথা মতো ব্যাংক কর্মকর্তার ছোট ভাই সাইদুর রশিদ ওই যুবকদের দেয়া কয়েকটি নম্বরে ধাপে ধাপে মোট দুই লাখ টাকা বিকাশে প্রেরণ করে। পরে শামীম হাসানকে ছেড়ে দেয়া হয়।’

ওসি জানান, এ ঘটনায় ভিকটিম ব্যাংক কর্মকর্তা শামীম হাসান বাকলিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থল হতে ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে অভিযুক্তদের শনাক্ত করে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে নগরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। এই চক্রের নারী সদস্যকে শনাক্ত করতে তৎপর রয়েছে পুলিশ।’