আজ ঢাকায় আসছেন মোদী, কড়া নিরাপত্তা দেশজুড়ে

বাংলাদেশ মেইল ::

আজ ঢাকায় আসছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মোদির সফরকেে কেন্দ্র করে নিয়ন্ত্রিত হবে যান চলাচল। পাশাপাশি রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে কাজ করবে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি  মাঠ প্রশাসন।

ডিএমপির বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, শুক্রবার ও শনিবার রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রধান সড়কে যান চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকবে। এমনকি কিছু কিছু সময়ের জন্য এসব সড়কে যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ থাকবে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে আগামী দুই দিন রাজধানীর কিছু সড়কে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হবে বলে জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

বৃহস্পতিবার ডিএমপির এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়ে বলা হয়, শুক্রবার ও শনিবার রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ও প্রধান সড়কে যান চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকবে। এমনকি কিছু কিছু সময়ের জন্য সেসব সড়কে যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ থাকবে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে শুক্রবার ঢাকা আসছেন নরেন্দ্র মোদি। এদিন বেলা ১১টার দিকে তিনি ঢাকা পৌঁছবেন এবং শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ঢাকা ছাড়বেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সফরের প্রথমদিন শুক্রবার সকালে বিমানবন্দর থেকে সড়কপথে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে যাবেন মোদি। সেখানে মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন।

সাভার থেকে রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়ালে আসবেন মোদি। ধানমন্ডি থেকে ঢাকার মিন্টো রোডের হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে যাবেন তিনি। বিকেলে মোদি যাবেন জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে। সেখান থেকে সন্ধ্যা ৭টায় যাবেন বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে। রাত সাড়ে ৮টায় তিনি হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ফিরবেন।

ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ জানিয়েছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রীসহ ভিভিআইপিদের চলাচলের আগে ও পরে এই সড়কগুলোতে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হবে। চলাচলের সময় এ সব সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকবে।

২৬ মার্চ সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মোদিসহ ভিভিআইপিদের ব্যবহৃত সম্ভাব্য সড়কগুলো হলো বিমানবন্দর সড়ক, গাবতলী-আমিনবাজার-সাভার, ধানমন্ডি-মিরপুর সড়ক হয়ে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল। এরপর ইন্টারকন্টিনেন্টাল থেকে প্যারেড গ্রাউন্ড, সবশেষে প্যারেড গ্রাউন্ড থেকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র হয়ে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ২৭ মার্চ সকাল সাড়ে ৮টায় হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল থেকে মোদি তেজগাঁও পুরনো বিমানবন্দরে যাবেন। সেখান থেকে তিনি হেলিকপ্টারে যাবেন সাতক্ষীরার শ্যামনগরের যশোরেশ্বরী মন্দিরে। ৯টা ৪৫ মিনিটে রওনা দিয়ে পৌঁছবেন ১০টা ১০ মিনিটে। ১০টা ১৫ মিনিটে তিনি সাতক্ষীরা থেকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওনা হবেন এবং ১০টা ৪৫ মিনিটে পৌঁছবেন। ১০টা ৫০ মিনিটে তিনি বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাবেন।

সোয়া ১১টায় টুঙ্গিপাড়া থেকে কাশিয়ানির ওড়াকান্দির উদ্দেশে রওনা হবেন মোদি। ১১ টা ৩৫ মিনিটে মতুয়া সম্প্রদায়ের তীর্থস্থান হরিপদ ঠাকুরের জন্মভিটায় পৌঁছাবেন।

১১টা ৫০ মিনিটে মোদি ওড়াকান্দি ত্যাগ করবেন এবং ১২টা ৪৫ মিনিটে তেজগাঁয়ের পুরনো বিমানবন্দরে ফিরে আসবেন। সেখান থেকে দুপুর ১টায় যাবেন হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে।

মোদি বিকেল সোয়া ৩টায় হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে। সাড়ে ৩টায় প্রধানমন্ত্রী সেখানে মোদিকে স্বাগত জানাবেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শিমুল হলে দুই প্রধানমন্ত্রী ৩০ মিনিটের একান্ত বৈঠকে অংশ নেবেন।

এরপর বিকেল ৪টায় হবে এক ঘণ্টার দ্বিপাক্ষিক বৈঠক। বিকেল ৫টা ২০ মিনিটে মোদি বঙ্গভবনের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ছাড়বেন।

সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় মোদি বিমানবন্দরের উদ্দেশে বঙ্গভবন ছাড়বেন। ৬টা ৩৫ মিনিটে বিমানবন্দরে পৌঁছনোর পর তাকে বিদায় জানাবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন। সন্ধ্যা ৬টা ৪০ মিনিটে মোদিকে বহনকারী বিশেষ বিমান ঢাকা ছাড়বে।