কয়েক বছরের বিতর্কিত পররাষ্ট্রনীতিকে দুরে ঠেলতে চান বাইডেন

বাংলাদেশ মেইল ::

আবারো যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বুঝাতে চাইলেন, ডনাল্ড ট্রাম্পের আমলে গত কয়েক বছরের বিতর্কিত পররাষ্ট্রনীতিকে দূরে ঠেলে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বমঞ্চে আবার তার আগের অবস্থানে ফিরে আসার সর্বাত্মক চেষ্টাই চালাবে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট তথা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার তাদের অফিসিয়াল টুইটার একাউন্ট থেকে একটি টুইট করে যেখানে বাইডেন বলছেন, সহজ সত্যটা হলো যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বমঞ্চে নিজেকে অনুপস্থিত রাখতে পারে না। যুক্তরাষ্ট্র ফিরে এসেছে। তার কূটনীতি ফিরে এসেছে। জোটও ফিরে এসেছে।

এর দুই ঘন্টা পরেই আরেক টুইটে বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের জোটগুলো আমাদের অন্যতম বৃহত্তম সম্পদ। আর কূটনীতি সহযোগে নেতৃত্ব দেওয়ার অর্থ আমাদের সহযোগী এবং মূল অংশীদারদের সাথে আরও একবার কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দাঁড়ানো।

গেলো ফেব্রুয়ারিতে বিবিসি’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন ‘যুক্তরাষ্ট্র আবার ফিরে এসেছে’ মন্তব্য করে জানিয়েছিলেন- করোনা মহামারি, জলবায়ু পরিবর্তন, ইরানের সঙ্গে পরমাণু চুক্তির মতো অমীমাংসিত বিষয়গুলো সহ অন্যান্য বৈশ্বিক সমস্যা সমাধানে এখন থেকে যুক্তরাষ্ট্র পুরোপুরি সম্পৃক্ত থাকবে।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগ দিয়ে প্রেসিডেন্ট বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ইউরোপীয় মিত্রদের সম্পর্কের টানাপোড়েনের সমাপ্তি টানার ইঙ্গিত দিয়ে বলেছিলেন ‘যুক্তরাষ্ট্র ফিরে এসেছে, ট্রান্সআটলান্টিক জোটও ফিরে এসেছে।’

৪ ফেব্রুয়ারি জো বাইডেন তার প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথম কূটনৈতিক ভাষণে বৈশ্বিক মঞ্চে ‘যুক্তরাষ্ট্র ফিরে এসেছে’ বলে ঘোষণা করেছিলেন। পররাষ্ট্রনীতিতে নতুন যুগের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে দেওয়া প্রথম ভাষণে সেদিন বাইডেন বলেছিলেন, ‘আমেরিকা ইজ ব্যাক’।

তারও আগে গত বছরের নভেম্বর মাসে নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট, জার্মানির চ্যান্সেলরের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছিলেন বাইডেন। সেসব টেলিফোনের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাইডেন তখন বলেছিলেন, ‘আমি তাদের জানিয়েছি যে, যুক্তরাষ্ট্র আবার ফিরে এসেছে। আমরা আবার খেলায় ফিরতে যাচ্ছি।’।