শাহাদাতের বিরুদ্ধে বিএনপি নেত্রীর চাঁদাবাজি মামলা!

বাংলাদেশ মেইল ::

দলীয় কার্যালয়ে সোমবার সংগঠিত সংঘর্ষের ঘটনায় নয় নগর বিএনপির আহবায়ক ডাঃ শাহাদাত হোসেন গ্রেফতার হয়েছেন দলের এক নেত্রীর করা মামলায়।

এ বিষয়ে নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মেহেদী হাসানবলেন, “চকবাজার থানায় এক চিকিৎসকের করা চাঁদাবাজির মামলায় শাহাদাতকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিকালে বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায়ও তার সম্পৃক্ততা রয়েছে।”

নগর বিএনপির মহিলা বিষয়ক সহ-সম্পাদক ডা. লুসি খানের কাছে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনের সময় কোটি টাকা চাঁদা দাবি করেছেন নগর বিএনপির আহ্বায়ক ও মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন – এমন অভিযোগে করা একটি মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে তাকে। সোমবার এমন অভিযোগে মামলা দায়েরের পরপরই ট্রিটমেন্ট  ক্লিনিক থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে শাহাদাতের সঙ্গে সহযোগি ছিল মোজাফফর আহমেদ ও ফাতেমা জোহুরা নামের আরও দুজন। শুধু বিএনপি নেত্রী ওই চিকিৎিসকের কাছে কোটি টাকা চাঁদা দাবিই নয়; লুসির পরিচালিত একটি এনজিওর সচিবকেও অপরহণের অভিযোগ আনা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

মামলায় শাহাদাত গ্রেপ্তার হলেও অন্য দুই আসামি এখনও পলাতক রয়েছে।

আটকের পর পর  বিএনপির সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনায় ডা. শাহাদাতকে আটকের কথা চাউর হয়েছিল।

চকবাজার থানার ওসি আতাউর রহমান খোন্দকার  বলেন, ‘লুসি খান মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ায় তাকে শাহাদাত নানাভাবে হুমকি ধমকি দিয়ে আসছিলেন। পরে ডা. লুসি খানের পরিচালিত ‘জীবনচিত্র’ নামের একটি এনজিওর সেক্রেটারি মহিউদ্দীন মজুমদারকে অপহরণ করে এক কোটি টাকা চাঁদা দাবি করেছিলেন ডা. শাহাদাত হোসেনসহ তিন সহযোগি। এমন অভিযোগে তাদের তিনজনকে আসামি করে অপহরণ ও চাঁদাবাজির মামলা দায়ের হয় সোমবার বিকেলে। এরপরই সন্ধ্যায় ট্রিটমেন্ট হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। অন্যদেরও গ্রেপ্তার করা হবে।’

আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৩৮৫, ৩৮৬, ৩৮৭, ৩৬৫ ও ৫০৬ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।