চকরিয়ায় স্কুল-কোচিং সেন্টার সিলগালা

বাংলাদেশ মেইল ::

করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার ১৮ দফা নির্দেশনা দিলেও বেসরকারি স্কুল কোচিং সেন্টারগুলো মানছে না সেই নির্দেশনা। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে  স্কুল-কলেজ ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার কথা বলা হলেও বাস্তবে তা মানা হচ্ছে না। এমনকি কোচিং সেন্টারসহ কয়েকটি স্কুলের ছাত্রাবাস খোলা রেখেই দেদারছে চলে আসছে পাঠদান।

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) দুপুরে চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ, চকরিয়া গ্রামার স্কুলসহ কয়েকটি কোচিং সেন্টারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে এমনই চিত্র দেখা গেছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের এই অভিযান পরিচালনা করেন চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ শামসুল তাবরীজ।

অভিযানে আবাসিক হল খোলা পাওয়ায় আটক করা হয় গ্রামার স্কুলের দুই শিক্ষক, এক কর্মচারী ও কোরক বিদ্যাপীটের হল সুপার এবং অফিস সহকারীকে। এ সময় কয়েকটি স্কুলের আবাসিক হল সিলগালা করে দেওয়া হয়। তবে মুচলেকা নিয়ে আটককৃতদের বিকালে ছেড়ে দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

এই বিষয়ে ইউএনও সৈয়দ শামসুল তাবরীজ বলেন, ‌‘দেশে আবারও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে গেছে। করোনা পরিস্থিতির কারনে সরকাল স্কুল কলেজ অনেক আগে থেকেই বন্ধ রেখেছে। সাম্প্রতিক সময়ে করোনা নতুন করে বিস্তার লাভ করায়  সরকার  সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে। কিন্তু সরকারের এই নির্দেশ অমান্য করে চকরিয়ায় বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এমন কি ছাত্রাবাসও খোলা রাখা হয়েছে। অভিযানে কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার সিলগালা করা হয়েছে। ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের কার্যক্রম না করে সেজন্য তাদের সতর্ক করা হয়েছে।

বিএম/আরসি