জর্ডানের প্রিন্স হামজাহ বিন হুসেইন গৃহবন্দি

বাংলাদেশ মেইল ::

রাজতন্ত্রের সমালোচকদের দমনের অংশ হিসেবে তাকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে বলে দাবি করেছেন জর্ডানের সাবেক ক্রাউন প্রিন্স হামজাহ বিন হুসেইন। আজ রোববার বিবিসি তাদের এক অনলাইন প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

আইনজীবীর মাধ্যমে বিবিসিকে পাঠানো এক ভিডিও ফুটেজে জর্ডানের বাদশাহ আবদুল্লাহ’র সৎ ভাই প্রিন্স হামজাহ বিন হুসেইন দেশটির নেতাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অযোগ্যতা ও হয়রানি করার অভিযোগ তুলেছেন।

রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে কথিত এক অভ্যুত্থান ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে দেশটির শীর্ষস্থানীয় বেশ কিছু মানুষকে গ্রেপ্তার করার পর ব্রিটিশ সম্প্রচারমাধ্যম বিবিসিকে ওই ভিডিওটি পাঠান প্রিন্স হামজাহ।

প্রিন্স হামজাহকে গৃহবন্দি করে রাখার বিষয়টি এর আগে অস্বীকার করেছিল দেশটির সামরিক বাহিনী। তবে বাহিনী জানিয়েছে, দেশের ‘নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা’ নষ্ট করার কাজে ব্যবহার করা হতে পারে এমন পদক্ষেপ বন্ধ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে হামজাহকে।

সম্প্রতি প্রিন্স হামজাহ দেশের আদিবাসী গোষ্ঠীগুলোর নেতাদের সঙ্গে দেখা করার পর তাকে গৃহবন্দি করে রাখার পদক্ষেপ নেয়া হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, আদিবাসী নেতাদের কাছ থেকে প্রিন্স কিছুটা সমর্থন আদায় করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

অবশ্য প্রিন্স হামজাহ বিন হুসেইন কোনো ধরনের অন্যায় করার কথা অস্বীকার করেছেন। তার দাবি, অভ্যুত্থানের যে ষড়যন্ত্র হয়েছে তিনি কোনো ভাবেই এর অংশ ছিলেন না।

হামজাহ প্রয়াত বাদশাহ হুসেইন ও তার স্ত্রী রানি নুরের বড় ছেলে। তিনি যুক্তরাজ্যের হ্যারো স্কুল ও রয়্যাল মিলিটারি অ্যাকাডেমি থেকে স্নাতক করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়াশোনা করা হামজাহ এর আগে জর্ডানের সশস্ত্র বাহিনীতেও কর্মরত ছিলেন।