ক্ষমা চাইলেন ভিপি নূর

বাংলাদেশ মেইল ::

ফেসবুক লাইভে এসে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত করে উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে মামলা হওয়ার পর নিজের বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নূর।

রোববার মধ্যরাতে নূর ফেসবুক লাইভে এসে ক্ষমা চান। এর আগে গত বুধবার বিকালে ফেসবুক লাইভে এসে নূর বলেন, ‘কোনো মুসলমান আওয়ামী লীগ করতে পারে না। যারা এই আওয়ামী লীগ করে তারা চাঁদাবাজ, ধান্ধাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী, চিটার-বাটপার এই ধরনের মুসলমান।’

এরপর ‘ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত ও উসকানিমূলক বক্তব্যের’ অভিযোগ এনে রোববার সন্ধ্যায় শাহবাগ থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আশরাফুল ইসলাম সজীব।

মামলার হওয়ার পর মধ্যরাতেই নুরুল হক নুর তার আরেকটি ফেসবুক পেজ থেকে লাইভে এসে বলেন, ‘আওয়ামী লীগে অবশ্যই ধর্মপ্রাণ মুসলমান ভাই-বোনেরা আছেন, হিন্দু-খ্রিস্টান ভাই-বোনেরা আছেন। সব দলেই ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মানুষ আছে। সেক্ষেত্রে আমি আওয়ামী লীগের বা আওয়ামী সমর্থকদের ঢালাওভাবে আক্রমণ করে কোনো কথা বলিনি।’

‘সেদিনের লাইভের বক্তব্যের জন্য কেউ কষ্ট পেয়ে থাকলে আমি দুঃখ প্রকাশ করছি। স্বাভাবিকভাবে আমার যদি ভুল হয় আমার জায়গা থেকে একশবার ক্ষমাপ্রার্থী থাকব। আমার ভুল হতেই পারে, আমি মানুষ, ফেরেশতা না। আমার ভুল হলে তার জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী, আমি ক্ষমা চাই।’

মামলার বিষয়ে নূর বলেন, ‘ওই বক্তব্যকে পুঁজি করে হয়রানি করার জন্য মামলা করা পুরোপুরি একটা রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র। এই ষড়যন্ত্র শুধু আমার বিরুদ্ধে নয়, এদেশের গণতন্ত্রের জন্য যারা লড়াই-সংগ্রাম করছে তাদের বিরুদ্ধেও হচ্ছে।’

এদিকে নূর আগে যে ফেসবুক পেজ থেকে সব সময় লাইভ করতেন, মামলা হওয়ার পর তা আর পাওয়া যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘নুরুল হক নূরের এর আগে বেশ কয়েকটা আইডি হ্যাক করা হয়েছিল। তাই তিনি পেজ থেকে লাইভে আসতেন। তার দুইটা ফেসবুক পেজ ছিল। একটাতে ১২ লাখের উপরে ফলোয়ার। ওটা মামলার পর থেকে নিয়ন্ত্রণের বাইরে। আরেকটা পেজে ছয় লাখের উপরে ফলোয়ার আছে। ওটা থেকে তিনি গতকাল রাতে লাইভে এসে ক্ষমা চেয়েছেন।’