রাজধর্মে সনিষ্ট মমতা, তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী, খড়দহ থেকে লড়ার প্রস্তুতি

বাংলাদেশ মেইল ::

একটা সময় নিদারুণ দারিদ্র্যের মধ্যে কেটেছে তার। বাবা প্রমীলেস্বর বন্দ্যোপাধ্যায় গত হয়েছেন। অভুক্ত ভাইবোনদের মুখে খাবার তুলে দেয়ার দায়িত্ব মমতা এবং বড়দা অজিতের। মা গায়েত্রী দেবী খড়কুটোর চুলা জ্বালিয়ে বসে থাকতেন। অজিত আলুটা, মূলোটা নিয়ে আসতেন। যোগমায়া দেবী কলেজে মর্নিং ক্লাস করে, দুধের ডিপোতে কাজ করে দৈনিক পারিশ্রমিকের টাকায় মমতা আনতেন চাল। তারপর রান্না চাপতো। সেই পাশের বাড়ির মেয়ে তৃতীয়বারের জন্য পশ্চিমবঙ্গের মসনদে বসছেন। বুধবার শপথ। সোমবার সর্বসম্মতিক্রমে তাকে পরিষদীয় দলের নেতার পদে মনোনীত করেন নবনির্বাচিত বিধায়করা।

তৃতীয়বার রাজধর্ম পালনে মমতা যে সনিষ্ট তা তিনি বোঝান তার বক্তব্যে। তিনি বলেন, বিজেপি অনেক অত্যাচার করেছে। কেন্দ্রীয় বাহিনী অনেক অত্যাচার করেছে। কিন্তু আপনাদের কাছে অনুরোধ- সংযত থাকুন। আইন নিজের হাতে নেবেন না। প্রয়োজনে পুলিশে জানান। মমতা এদিন বক্তব্য রাখেন অত্যন্ত সংযতভাবে। তার মুখে রাজধর্ম কথাটাও শোনা যায়। বাড়ি থেকে বের হওয়ার আগে বিভিন্ন এলাকার তৃণমূল নেতৃত্বকে নির্দেশ দেন কর্মীদের সংযত রাখতে। কোভিড যে তার প্রথম অগ্রাধিকার তাও বোঝান মমতা। তার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে থাকছে না কোনো আড়ম্বর। প্রথমে বিজেপির ভাইরাস, এরপর করোনাভাইরাস পশ্চিমবঙ্গ থেকে দূর করতে তিনি বদ্ধপরিকর। অন্যদিকে নন্দীগ্রাম নিয়ে আদালতে যাওয়ার প্রস্তুতি। খড়দহে সম্ভবত তিনি উপনির্বাচনে লড়বেন। কোভিড ফল ঘোষণার আগেই মারা গেছেন মমতার দুষ্টু ছেলে বলে কথিত কাজল সিনহা। কাজলের জন্য এর থেকে ভালো স্মৃতি-তর্পণ আর কি হতে পারে!