আনোয়ারায় ভ্রাম্যমান আদালতের ভয় দেখিয়ে চাঁদা দাবীর অভিযোগ

ইকবাল বাহার (আনোয়ারা প্রতিনিধি)

আনোয়ারায় উপজেলা প্রশাসনের মিথ্যা পরিচয় দিয়ে মোবাইল ফোনে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের ভয় দেখিয়ে ২টি মিষ্টির দোকান থেকে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা চাঁদা দাবীর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বুধবার(১২ মে) উপজেলার বটতলী ইউনিয়নেয় রুস্তমহাট বাজারে এ ঘটনা ঘটে। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ জোবায়ের আহমেদের তৎপরতায় ভুক্তভোগিরা প্রতারণার হাত থেকে রক্ষা পায়।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) তানভীর হাসান চৌধুরী পরিচয় দিয়ে বটতলী ইউনিয়ন পরিষদের সচিব সাইফুল ইসলামের কাছে (০১৬১০-৪৬৯৮০৫) নাম্বার থেকে ফোন দিয়ে জানতে চাই,বটতলী রুস্তম হাটে মিষ্টির দোকান কয়টি আছে??

সাইফুল ইসলাম বিভিন্ন মিষ্টির দোকানের নাম উল্লেখ করলে তার মধ্যে বনফুল ও আল মদিনা দুটি প্রতিষ্টানের পরিষদের চৌকিদার দিয়ে তাদের ফোন নাম্বার নিয়ে রুস্তমহাট বনফুল থেকে ৭০ হাজার টাকা ও আল মদিনা হোটেল থেকে ১ লাখ টাকা বিকাশের মাধ্যমে দ্রুত পাঠানোর নির্দেশ দেয়। টাকা না পাঠালে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে বলে জানায়।

বিষয়টি সন্দেহ হলে তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ জোবায়ের আহমেদ ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) তানভীর হাসান চৌধুরীকে অবগত করলে তাদের তৎপরতায় প্রতারণার হাত থেকে রক্ষা পায় ২ দোকানের মালিক।

এ ব্যাপারে রুস্তমহাট বনফুলের স্বত্বাধিকারী মো. ফারুকুল ইসলাম বলেন, বুধবার বেলা ১২ টায় ০১৬১০-৪৬৯৮০৫ নাম্বার থেকে ফোন করে সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিচয় দিয়ে আমার কাছ থেকে ৭০ হাজার টাকা দাবী করে। টাকা না দিলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের হুমকিও দেয়। আমার বিষয়টি আমি বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে অবগত করলে বুঝতে পারি এরা প্রতারত চক্র।

আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ জোবায়ের আহমেদ জানান, উপজেলা প্রশাসন ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর পরিচয় দিয়ে মোবাইল কোর্ট করার ভয় দেখিয়ে ফোনে অজ্ঞাত ব্যক্তি রুস্তমহাট ও চাতরী চৌমহনী বাজারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতারণার করে চাঁদা দাবী করছে মর্মে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে প্রতারকদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।