ভ্যাকসিনের ২য় ডোজ নিয়ে অনিশ্চয়তায় প্রায় ৪০ দেশ: ডব্লিউএইচও

বাংলাদেশ মেইল ::

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ বিশ্বের ৩০ থেকে ৪০টি দেশ তাদের নাগরিকদের জন্য নিশ্চিত করতে পারছে না। বিশেষ করে যেসব নাগরিকদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছিল তারাই অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালকের শীর্ষ উপদেষ্টা ব্রুস এলওয়ার্ড।

ওই কর্মকর্তা জানান, বিশ্বের বহু দেশে ভ্যাকসিন সঙ্কট দেখা দিয়েছে। দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে শুরু হয়েছে অনিশ্চয়তা। এছাড়া যেসব দেশ ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের টিকার ওপর নির্ভরশীল তাদের টিকা পাওয়ায় অনিশ্চয়তা বেড়েছে বহুগুণ। কারণ ভারতে ডেল্টা ধরন শনাক্তের পর নাজুক হয়ে পড়েছে দেশটি। সে কারণে ভারত টিকা রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে।

এলওয়ার্ড জানান, ভারতের টিকা রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে লাতিন আমেরিকা ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশ। এছাড়া টিকা সঙ্কট দেখা দিয়েছে নেপাল, শ্রীলংকাসহ ভারতের পার্শ্ববর্তী কয়েকটি দেশে। এসব দেশে নিজেদের মজুত করা টিকাও প্রায় শেষের দিকে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, ১৮ জুন পর্যন্ত সারাবিশ্বে মোট ২৪৭ কোটি ৮৪ লাখ ২ হাজার ৭শ ৭৬ জনের শরীরে টিকার প্রয়োগ করা হয়েছে। এদিকে শনিবার প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে মৃত্যু ও শনাক্তের হার কিছুটা কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৮ হাজার ৫২৩ জন। একই সময়ে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৪ লাখ ৮৯৭ জন। শনিবার আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, বিশ্বব্যাপী এখন পর্যন্ত মোট ১৭ কোটি ৮৫ লাখ ৯৬ হাজার ৭৪৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছেন ৩৮ লাখ ৬৬ হাজার ৮৬২ জন। আর এখন পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৬ কোটি ৩১ লাখ ১৩ হাজার ২৫৮ জন।

বিশ্বে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্র এখনও সবার ওপরে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩ কোটি ৪৩ লাখ ৯৩ হাজার ২৬৯ জনের শরীরে। এর মধ্যে মারা গেছেন ৬ লাখ ১৬ হাজার ৯২০ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ২ কোটি ৮৬ লাখ ৭৫ হাজার ৯২৯ জন।

তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৯৮ লাখ ২২ হাজার ৭৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছেন ৩ লাখ ৮৫ হাজার ১৬৭ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ২ কোটি ৮৬ লাখ ৭০ হাজার ৮৭৯ জন। তৃতীয় স্থানে রয়েছে ব্রাজিল। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৭৮ লাখ ২ হাজার ১৭৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৯৮ হাজার ৬২১ জনের। আর সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ৬১ লাখ ৩৬ হাজার ৯৬৮ জন। তালিকায় চতুর্থ স্থানে রয়েছে ফ্রান্স, পঞ্চম স্থানে তুরস্ক, ষষ্ঠ স্থানে রাশিয়া, সপ্তম যুক্তরাজ্য, অষ্টম ইতালি, নবম আর্জেন্টিনা এবং দশম স্থানে রয়েছে কলম্বিয়া।