পারকি সৈকতে আটকে পড়া জাহাজ
পলি জমে হুমকির মূখে পারকি সৈকত, বিলীন হচ্ছে ঝাউবন

ইকবাল বাহার,আনোয়ারা প্রতিনিধি ::

চট্রগ্রামে সমুদ্র সৈকতের মধ্যে আনোয়ারার পারকি অন্যতম। জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা এ সমুদ্র সৈকত দেশের পর্যটন শিল্পে বিপুল সম্ভানাময়ী একটি পর্যটন কেন্দ্র।

দেশের পর্যটন শিল্পের প্রসার ও জনপ্রিয়তার বিবেচনায় সরকার এ সৈকতের উন্নয়নে মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের পরিকল্পনা গ্রহন করেছেন। তারই অংশ হিসেবে ৬৩ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে। চট্রগ্রাম শহরের অতি নিকটে উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্হা ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের কারনে সপ্তাহের ছুটির দিন ছাড়াও হাজার হাজার পর্যটকে মুখরিত থাকে এ সৈকত। আর এ সৈকত মূল সৌন্দর্য্য হচ্ছে সারি সারি ঝাউ গাছ। কিন্তু বিগত ২০১৭ সালে ঘূর্ণিঝড় মোড়ায় ভেসে আসা ক্রিস্টেল গোল্ড জাহাজটি সৈকতে আটকা পড়ে গেলে গত ৪ বছর ধরে সৈকতে জোয়ারের পানির গতি পথ পরিবর্তিত হওয়ার দরুন বালির স্তর সরে গিয়ে পলি মাঠিতে কাদায় ভরে যায় সৈকত। সে কারনে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের জোযারের প্রভাবে শত শত ঝাউ গাছ উপড়ে পড়েছে মাঠিতে ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের পাশাপাশি হুমকিতে ঝাউ বন।

চট্রগ্রাম পরিবেশ অধিদপ্তরের বিভাগীয় পরিচালক মফিদুল ইসলাম জানান, ২০১৭ সালে ঘূর্ণিঝড় মোড়ায় ভেসে আসা জাহাজ ক্রিস্টেল গোল্ড পারকি সৈকতে আটকে পড়ার কারনে জাহাজটির প্রভাবে সৈকতটি বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরবর্তীতে এ জাহাজটি কাটার জন্য টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান  বিধি লঙ্গন করে জাহাজটি কাটতে গেলে পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে ২ কোটি টাকা জরিমানা করা হয় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্টানকে। এ ঘটনার পর উক্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান  পরিবেশ অধিদপ্তরের দুই কোটি টাকা জরিমানার আদেশের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে মামলা করেন কিন্তু পরবর্তিতে আপিল বিভাগেও উক্ত জরিমানা বহাল রাখা হয়। তারপরও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হাইকোর্টে আবারো রিটের আপিল করায় মামলাটি ঝুলে আছে। যার কারনে
ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের মামলায় জাহাজ কাটা কার্যক্রম স্থগিত  রয়েছে ।

বনবিভাগ ও স্হানীয় সূএে জানা যায়, পারকি সমুদ্র সৈকতের ১৯৯২-৯৩ অর্থবছরে ১২ হেক্টর জায়গায় ঝাউবন গড়ে তোলা হয়। এরপর ১৯৯৩-৯৪ অর্থবছরে ১৭ দশমিক ২ হেক্টর, ২০০৩-০৪ অর্থবছরে ৫ হেক্টর ও ২০০৪-০৫ অর্থবছরে ৫ হেক্টর জায়গায় ঝাউ বাগান করা হয়। চার দাপে মোট ৩৯ দশমিক ২ হেক্টর বা ৯৭ একর সৈকতে লাগানো হয় ঝাউগাছ। এই সবুজ বেষ্টনী পারকি সৈকতের সৌন্দর্য বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকেও রক্ষা করে থাকে।

আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও পারকি সমুদ্র সৈকত ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি শেখ জোবায়ের আহমেদ বলেন, পারকি সৈকতে রক্ষা করতে হলে জাহাজটি অবশ্যই সরাতে হবে। এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরে চিঠিও দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে জাহাজটির প্রভাবে সৈকতের বালুচর পলি মাটি জমে গেছে। যার প্রভাবে ঝাউ বাগান উজাড় হয়ে সৌন্দর্য্য হারাচ্ছে পারকি সৈকত।।