নিরপরাধ মিনুর জেলখাটা: সাজাপ্রাপ্ত সেই কুলসুম আক্তার গ্রেপ্তার

কুলসুম আক্তার

বাংলাদেশ মেইল::

চট্টগ্রামে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বহুল আলোচিত আসামি কুলসুম আক্তার কুলসুমাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। কুলসুম দন্ডপ্রাপ্ত হলেও তার জায়গায় সাজা কাটছিলেন মিনু আক্তার।

বিনা অপরাধে প্রায় তিন বছর জেলে থাকতে হয়েছিল নিরপরাধ মিনু আক্তারকে। পরে জামিন পেয়ে গত ২৮ জুন বায়েজিদ এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান মিনু।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নেজামউদ্দিন বলেন, বুধবার (২৮ জুলাই) রাত তিনটার দিকে কুলসুমকে চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনা জানার পর থেকেই তাকে গ্রেপ্তারে কাজ করছিল পুলিশ। অবশেষ পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে সে। এই বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।’

জানা গেছে, মোবাইল ফোন নিয়ে কথা-কাটাকাটির জেরে ২০০৬ সালের ৯ জুলাই চট্টগ্রাম নগরের রহমতগঞ্জ এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় পোশাককর্মী কোহিনুর বেগমকে হত্যা করা হয়। ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর এ মামলার রায়ে আসামি কুলসুমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত। রায়ের দিন কুলসুম আদালতে অনুপস্থিত থাকায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

প্রকৃত আসামি কুলসুম আক্তার মামলার সাজা হওয়ার আগে ২০০৭ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত কারাগারে ছিলেন। সাজা ঘোষণা হওয়ার পর ২০১৮ সালের ১২ জুন কুলসুম সেজে মিনু আক্তার কারাগারে আসেন। চলতি বছরের ২১ মার্চ চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের পক্ষ থেকে আদালতে একটি আবেদন করা হয়। এই আবেদনে বলা হয়, ২০১৮ সালে কারাগারে পাঠানো আসামির সঙ্গে প্রকৃত আসামির মিল নেই। এছাড়া কারা রেজিস্ট্রারে থাকা দুজনের ছবির মিল নেই।

এ আবেদনের শুনানি শেষে কারাগারে থাকা মিনুকে আদালতে হাজির করে তার জবানবন্দি নেওয়া হয়। তখন তিনি জানান, তার নাম মিনু, তিনি কুলসুম নন।

আদালত কারাগারের রেজিস্ট্রারগুলো দেখে হাজতি আসামি কুলসুম ও সাজাভোগকারী আসামির চেহারায় মিল খুঁজে পাননি। তখন আদালত কারাগারের রেজিস্ট্রারসহ একটি নথি হাইকোর্ট বিভাগে আপিল নথির সঙ্গে সংযুক্তির জন্য পাঠিয়ে দেন।

পরে হাইকোর্ট গত ৭ জুন নিরপরাধ মিনুকে মুক্তির নির্দেশ দেন। সেই সঙ্গে প্রকৃত আসামি কুলসুমকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছিলেন। এরপর থেকেই কুলসুমকে গ্রেপ্তারে কাজ করছিল পুলিশ। শেষ পর্যন্ত  বুধবার রাতে পুলিশের জালে ধরা পড়ে কুলসুম।

আসামি না হয়েও তিন বছর সাজা খেটে ১৬ জুন  চট্টগ্রাম কারাগার থেকে মুক্তি পান নিরপরাধ মিনু। যাদের কারণে প্রায় তিন বছর বিনা অপরাধে জেলে থাকতে হয়েছে, কারাগার থেকে বের হয়ে তাদের বিচারও দাবি করেছিলেন মিনু আক্তার। কারাগার থেকে বের হবার ১২ দিনের মাথায় গেল ২৮ জুন রহস্যজনকভাবে  সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান মিনু।

জেলে থাকা অবস্থায় মিনুর স্বামীও তাকে ছেড়ে যায়। এক সন্তানের মৃত্যুর খবর পান জেলে বসেই।