জামাই-শাশুড়ির জুয়ার আসর, আটক ১০

বেরাইজ্যে সুমন গ্রেফতার

বাংলাদেশ মেইলঃঃ

নগরীর ডবলমুরিং থানাধীন এলাকায় জামাই-শাশুড়ির একটি জুয়ার আসর ভেঙে দিয়েছে পুলিশ। এসময় পুলিশ জুয়ার আসরের মূল হোতা আব্দুর রহিম (৪৫) এবং তার শাশুড়ি ফরিদা বেগম (৫০) সহ ১০ জনকে আটক করেছে। উদ্ধার করেছে জুয়া খেলার সরঞ্জাম।

গতকাল শুক্রবার গভীর রাতে নগরীর ডবলমুরিং থানার মোগলটুলি এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃত বাকিরা হলেন- মোঃ আব্দুল হক বাবুল (৪২), মোঃ মিন্টু হাওলাদার (২৭), মোঃ কবির (৪০), জাফরুল্লাহ (৪৯), জাহাঙ্গীর আলম (৪১),মিজানুর রহমান পারভেজ (৪৫), আনোয়ার হোসেন (৫০) এবং
বদিউল আলম (৪৭)।

ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ফরিদা ও আব্দুর রহিম দীর্ঘদিন ধরেই মোগলটুলি এলাকায় জুয়ার আসর চালিয়ে আসছিলেন। মোগলটুলির আহসান উল্লাহ মাতব্বর বাড়িতে ফরিদার চারটি ঘর আছে। তন্মধ্যে তিনটি ঘর ভাড়া দিয়েছেন। আর বাকি ঘরটিতে জুয়ার আসর বসিয়েছেন। জামাই রহিম বিভিন্ন স্থান থেকে জুয়াড়ি নিয়ে আসতেন। মূলত রাতের বেলাতেই এই জুয়ার আসর বসে। কারণ, জামাই- শাশুড়ির এই জুয়ার আসরের জুয়াড়িদের অধিকাংশই নিম্ন আয়ের। সারাদিন কাজ করে রাতের বেলাতেই তারা জুয়ার আসরে বসেন।
গতকাল রাত সাড়ে বারটায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালানো হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ফরিদা বেগম ঘর থেকে বের হয়ে আসেন এবং পুলিশের সাথে বাকবিতণ্ডা শুরু করে জুয়াড়িদের পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু কেউই পালিয়ে যেতে পারেনি। জুয়ার আসর থেকে ৮ জনকে এবং জুয়ার আসরের পরিচালক শাশুড়ি ফরিদা বেগম ও জামাই আব্দুর রহিমকে আটক করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে জুয়ায় ব্যবহৃত ২,৭২৫ টাকা এবং ৩ সেট তাস জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় আটককৃত ১০ জনের বিরুদ্ধে জুয়া আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।