বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবির ঘটনায় নিহত-১, নিখোঁজ -৫

জোবাইর চৌধুরী, বাঁশখালী ::

বঙ্গোপসাগরে ঝড়ের কবলে পড়ে চট্টগ্রামের বাঁশখালীর উপজেলার চাম্বল এলাকার ৬টি ফিশিং ট্রলার লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। এ ঘটনায় ৫ মাঝিমাল্লা এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) সকাল ৯টায় বঙ্গোপসাগরের গ্যাসের টাংকি এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। এদিকে বুধবার (২৮ জুলাই)সকালে হাতিয়া দ্বীপ এলাকায় আবদু সবুর নামে এক জেলে কে জীবিত উদ্বার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে বোট মালিক সমিতির সভাপতি হেফাজুল ইসলাম।

অন্যদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুজ্জামান চৌধুরী এক জেলে নিহতের বিষয়টি জানিয়েছেন। তাছাড়া প্রাথমিকভাবে নিহত জেলের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্যর কথাও জানিয়েছেন তিনি।

বাংলাবাজার ফিশিং ট্রলার মালিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে, বাঁশখালীর চাম্বল এলাকার ২০টি ট্রলার মাছ ধরার জন্য মঙ্গলবার ভোর ৪ টায় বাংলাবাজার ঘাট থেকে বঙ্গোপসাগরে রওয়ানা দেয়। পরে সকাল ৯টায় ট্রলারগুলো ঝড়ের কবলে পড়ে মুহূর্তের মধ্যে লণ্ডভণ্ড হয়ে সমুদ্রের পানিতে বিলীন হয়ে যায়। এ সময় ফিশিং ট্রলারে থাকা মাঝি-মাল্লারা পানিতে ভাসতে ভাসতে অন্য ফিশিং ট্রলারের সহযোগিতায় প্রাণে রক্ষা পায়। তবে এখনো পর্যন্ত ৫ মাঝি-মাল্লা নিখোঁজ রয়েছেন।

ঝড়ের কবলে লণ্ডভণ্ড হওয়া ট্রলারগুলো হচ্ছে, হেফাজতুল ইসলামের মালিকানাধীন এফবি মুশফিক, এফবি ফারুক, এফবি কেয়াতল্লাহ ও এফবি নন্না মিয়া। এসব ট্রলারের মালিকের বাড়ি বাঁশখালীর চাম্বল ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডে বলে জানা গেছে।

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, বাঁশখালীর ৬টি ফিশিং ট্রলার ঝড়ের কবলে পড়ার খবর শুনেছি।এক জেলের মৃত্যের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। কোস্টগার্ডের মাধ্যমে নিখোঁজ মাঝিমাল্লার খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।