সিএমপি’র ট্রাফিকে ‘বডি ওর্ন ক্যামেরার উদ্বোধন

বডি ওর্ন ক্যামেরা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃঃ

বৈশ্বিক মহামারী করোনা মোকাবেলায় সরকারের মন্ত্রী পরিষদ কর্তৃক ঘোষিত ১৪ দিনের কঠোর বিধি-নিষেধের তৃতীয় দিনে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) ট্রাফিক বিভাগে বডি ওর্ন ক্যামেরা চালু করা হয়েছে ।

রোববার (২৫ জুলাই) দুপুরে সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীরের নির্দেশে টাইগার পাস মোড়ে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ট্রাফিক পুলিশ সার্জেন্ট মোঃ ওয়াসিম আরাফাত ও ট্রাফিক পুলিশ সার্জেন্ট নাজমুল আলম ছিদ্দিকীর শরীরে বসিয়ে দিয়ে এ ক্যামেরার উদ্বোধন করেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) শ্যামল কুমার নাথ।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিএমপি’র উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) এন.এম নাসিরুদ্দিন, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) মোঃ রইছ উদ্দিন, সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) মোঃ মাহামুদুল হাসান টি.আই (প্রশাসন) মোঃ মহিউদ্দিন খান, টি.আই (টাইগার পাস) শেখ ফরহাদুজ্জামান, ট্রাফিক সার্জেন্ট জাকির হোসাইন, ট্রাফিক সার্জেন্ট মোঃ ওয়াসিম আরাফাত, ট্রাফিক সার্জেন্ট নাজমুল আলম ছিদ্দিকী, ট্রাফিক সার্জেন্ট সঞ্জয় দে, ট্রাফিক সার্জেন্ট সুখেন কুমার দে প্রমূখ।

সিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) শ্যামল কুমার নাথ বলেন, রাজধানী ঢাকা ও সিলেটের পর চট্টগ্রাম মহানগরীর ৪ থানা ও ট্রাফিক বিভাগে প্রথম বারের মতো চালু হলো ‘বডি ওর্ন ক্যামেরা’। এ ক্যামেরা চালুর মাধ্যমে সিএমপি’র প্রযুক্তিগত কার্যক্রম আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল। এ ক্যামেরার মাধ্যমে  অডিও, ভিডিও এবং ছবি ক্যাপচার করা যায়। মাঠ পর্যায়ে পুলিশ সদস্যদের কার্যক্রম সুচারুভাবে তদারকি করতে ‘বডি ওর্ন ক্যামেরা’ সহযোগিতা করবে। কোন কিছু পুলিশের চোখ এড়িয়ে গেলেও তা ক্যামেরায় রেকর্ড হবে।পরে যা দেখে তদন্ত কাজ সম্পন্ন করা যাবে।

প্রথম দফায় সিএমপি’র ৪ থানায় ৭টি করে ২৮টি ও ট্রাফিক বিভাগে ২২টিসহ মোট ৫০টি ‘বডি ওর্ন ক্যামেরা’ দেয়া হয়েছে। বিশ্বের অনেক উন্নত দেশে ‘বডি ওর্ন ক্যামেরার’ কার্যক্রম চালু আছে। পুলিশের কাজে স্বচ্ছতা, দক্ষতা ও জবাবদিহিতা আনতে  সিএমপি’র এমন উদ্যোগ। সিএমপিতে ট্রাফিকের পাশাপাশি অপবাধ দমন ও আইন-শৃংখলা রক্ষায় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদেরকে এ ক্যামেরা দেয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, জিপিআরএস প্রযুক্তির মাধ্যমে যে কোন স্থান থেকে ক্যামেরা দেখে পুলিশের কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারি করা যাবে। সিসি ক্যামেরার মত কাজ করবে এটি। ‘বডি ওর্ন ক্যামেরা’ চালু হলে দায়িত্ব পালনের সময় পুলিশ সদস্যদের অগোচরে কোন কিছু বাদ পড়লেও ক্যামেরায় রেকর্ড হওয়া তথ্য ও ছবি কাজ দেবে। পাইলট প্রকল্পের আওতায় আপাতত সিএমপি’র ৪ থানা যথাক্রমে কোতোয়ালী, ডবলমুরিং, পাঁচলাইশ ও পতেঙ্গা এবং ট্রাফিক বিভাগে এ কার্যক্রম চালু করা হয়েছে।  সফলতা পেলে পর্যায়ক্রমে প্রত্যেক থানায় ক্যামেরাগুলো দেয়া হবে।
ট্রাফিক বিভাগে ‘বডি ওর্ন ক্যামেরা’ উদ্বোধনের পর কঠোর লকডাউনে সড়কে চলাচলকারী প্রাইভেট যানবাহন, মোটর সাইকেল ও রিক্সা ভ্যানে তল্লাশী অভিযান পরিচালনা করেন সিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) শ্যামল কুমার নাথ। এসময় অতি জরুরী প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে বের না হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

বিধি-নিষেধ অমান্য করে সড়কে বের হওয়ার দায়ে গত ৩ দিনে দু’শতাধিক যানবাহন আটক করা হয়েছে। কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীরের নেতৃত্বে মহানগরীর ৪টি প্রবেশ ও বাহির পথসহ মোট ২০টি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পুলিশের পক্ষ থেকে চেক পোস্ট বসানো হয়েছে। সরকারের নির্দেশনা যাতে কেউ অমান্য করতে না পারে সে লক্ষ্যে পুলিশের ক্রাইম ও ট্রাফিক বিভাগ চেক পোস্টগুলোতে তল্লাশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে। প্রাইভেট গাড়ী ও রিক্সা যাত্রী কি কারণে বাসা থেকে বের হচ্ছে তা চেক পোস্টে তদারকি করা হচ্ছে বলে জানান শ্যামল কুমার নাথ।