ঢাকায় বিধিনিষেধের প্রথম দিনে গ্রেপ্তার ৪০৩

বাংলাদেশ মেইল ::

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দুই সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধের প্রথম দিনে রাজপথে সরব আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। এরই অংশ হিসেবে বিধিনিষেধের প্রথম দিনে অকারণে বাইরে বের হওয়ায় রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ৪০৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। এছাড়া ২০৩ জনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করা হয়েছে এক লাখ ২৭ হাজার ২৭০ টাকা। অন্যদিকে ট্রাফিক বিভাগ ৪৪১টি গাড়ির বিরুদ্ধে জরিমানা করা হয়েছে ১০ লাখ ৬০ হাজার ৫০০ টাকা।

শুক্রবার ডিএমপির (মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশনস) অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম  এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, প্রথম ধাপের লকডাউন শিথিল হবার পর প্রথম দিনে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ডিএমপির ৮টি বিভাগের রমনা, লালবাগ, মতিঝিল, ওয়ারী, তেজগাঁও, মিরপুর, গুলশান ও উত্তরা এলাকা থেকে ৪০৩জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে অকারণে ও নানা অজুহাতে ঘর থেকে বের হওয়ায় ও বিধিনিষেধে প্রতিষ্ঠান খোলা রাখায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ২০৩ জনকে এক লাখ ৩৭হাজার ২৭০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এছাড়া ৪৪১টি গাড়ির বিরুদ্ধে জরিমানা করা হয়েছে ১০ লাখ ৬০ হাজার ৫০০টাকা।এর আগে গত বুধবার ১৪ জুলাই দিবাগত মধ্যরাত থেকে ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে শিথিল করা হয়েছে। গণপরিবহনগুলো না চললেও প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস, জরুরি সেবা সংস্থার গাড়ি এবং খোলা দেখা গেছে। রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চেকপোস্ট ও কঠোর ভাবেই দেখা গেছে।

এ বিষয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিরপুর বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মাহাতাব উদ্দিন  বলেন, বিধিনিষেধ না মানায় শাস্তি হিসেবে তাদের এ জরিমান করা হয়েছে। এটা কোন বাড়তি আয় নয়। সরকারি নির্দেশ অমান্য করা শাস্তির মধ্যে পরে। কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল করার পর পুনরায় বিধিনিষেধ মানাতে আমাদের কার্যক্রম চলমান চলছে।

এর আগে ঈদকে সামনে রেখে করোনার উচ্চ সংক্রমণের মধ্যেও চলমান কঠোর বিধিনিষেধ ২৩ জুলাই পর্যন্ত শিথিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। তবে ঈদের পর আবারও ১৪ দিনের জন্য কঠোর বিধিনিষেধ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

এতে বলা হয়- ১৪ জুলাই মধ্য রাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত পর্যন্ত চলমান বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়। একইসঙ্গে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত ফের কঠোর বিধিনষেধ আরোপ করা হয়।

তবে এ সময়ে সর্বাবস্থায় জনসাধারণকে সতর্কাবস্থায় থাকা এবং মাস্ক পরিধাণসহ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে অনুসরণ করতে হবে। বিধিনিষেধের প্রথম দিনে কড়া নজরদারি ছিলো আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর।