ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের উপসর্গ নিয়ে চমেকে ভর্তি এক নারী

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস

বাংলাদেশ মেইল::

ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের উপসর্গ নিয়ে এক নারী চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রযেছেন। ফেরদৌস বেগম নামে ষাটোর্ধ্ব এই নারী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তবে তিনি আসলেই ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত কি না সেটি নিশ্চিত করেননি চিকিৎসকরা।

তবে স্বজনরা জানিয়েছেন, রোগী ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত জানিয়ে প্রয়োজনীয় ইনজেকশন প্রয়োগের পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসক। তবে ইনজেকশনটি পাওয়া যাচ্ছে না।

রোববার (২৫ জুলাই) এই বৃদ্ধাকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাকে মেডিসিন বিভাগের অধীনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এর মাধ্যমে চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো ছত্রাকজনিত রোগটির উপসর্গ মিলেছে কারও শরীরে।

চমেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক সুযত পাল বলেন, ‘ভর্তি হওয়া রোগীর শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের লক্ষণ আছে। তবে তিনি আসলেই ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত কি না তা এখনই বলা যাবে না।  আপাতত আমরা তাকে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সাসপেক্টেড হিসেবে চিকিৎসা দিচ্ছি।’

রোগীর স্বজনরা জানিয়েছেন, গত ২৫ জুন ফেরদৌস বেগম জ্বরে আক্রান্ত হন। ৩ জুলাই তার শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়। ১৫ জুলাই নমুনা পরীক্ষায় কোভিড নেগেটিভ আসে। কিন্তু এরপর বিভিন্ন শারীরিক জটিলতা দেখা দিলে তাকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষায় তিনি ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে ধারণা করছেন চিকিৎসকেরা।

স্বজনরা আরও জানান, চিকিৎসার জন্য এমপোটেরিসিন-বি ইনজেকশন প্রতিদিন ৫ ভায়াল করে মোট ১৪ দিন প্রয়োগের পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। কিন্তু ওষুধটি পাওয়া না যাওয়ায় চিকিৎসা ব্যাহত হচ্ছে।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত এই নারীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকার বার্ডেম হাসপাতালে পাঠানো হবে।