চোরে না শুনে ধর্ম কাহিনী
লকডাউন কার্যকরে নগরীতে চোর পুলিশ খেলা

রানা আবির নাহাঃঃ

কথায় বলে,চোরে না শুনে ধর্মের কাহিনী। এমন কথারই প্রমাণ মেলে নগরীর চলমান লকডাউনে। লকডাউনের আরোপিত বিধি নিষেধ কার্যকরে নগরীর ৪ টি প্রবেশদ্বার ও ১৬ টি চেকপয়েন্টে অনেকটা হিমসিম খেতে হচ্ছে পুলিশ,সেনাবাহিনী, র‍্যাব ও জেলা প্রশাসনকে।

করোনা সংক্রমন প্রতিরোধে  সরকারে কঠোর লকডাউনের নির্দেশনার দিলে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বের হচ্ছে নগরবাসী। নানা অজুহাতে দিয়ে বের হলেও গুনতে হচ্ছে জরিমানা। অন্যদিকে,গণপরিবহন বন্ধ থাকলে ও মোটর সাইকেল- প্রাইভেটকারে হরেক রকমের  ষ্টিকার লাগিয়ে সড়কজুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ব্যাক্তিগত পরিবহন। ধরা খেলে গুনতে হচ্ছে জরিমানা,হচ্ছে মামলা। আটক করে গাড়ি পাঠাচ্ছে শ্রীঘরে।

চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন ট্রাফিক বিভাগের তথ্য মতে,গত বুধবার নগরীর ১৬ টি চেকপয়েন্ট ও ৪ টি প্রবেশ মুখে নানা অপরাধে পরিবহনের বিরুদ্ধে  মামলা১৫৮ হয়েছে,৭৭ টি গাড়ি আটক হয়েছে।

সরেজমিনে নগরীর ৪ টি প্রবেশদ্বার ও কয়েকটি চেকপয়েন্টে দেখা যায়,আইনশৃংখলা বাহিনীর কড়া নজরদারী উপেক্ষা করে নানা অজুহাতে পার হচ্ছে চেকপোষ্টের বৈতরণী। সিটি গেইটের চেকপোষ্টে দায়িত্বরত সার্জেন্ট শান্তময় দাশ বলেন,বিশেষ করে নগরীতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে প্রাইভেট কার ও মোটর সাইকেল। তবে প্রবেশমুখে কোন গাড়ি যদি সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে। সেক্ষেত্রে সাথে সাথে নেওয়া হচ্ছে ব্যবস্থা।
এদিকে, জেলা প্রশাসনের ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের পরিচালিত অভিযানে ৪৭ মামলায় ১৩ হাজার দুইশ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।