মাদ্রাসায় জাতীয় সংগীতই বড় জিহাদ !
জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে সুচিন্তার ভূমিকা অগ্রণী : আ. গাফফার চৌধুরী

সু চিন্তা

বাংলাদেশ মেইল ::

সু চিন্তা চট্টগ্রাম আয়োজিত এক ওয়েবিনার আলোচনায় প্রখ্যাত সাংবাদিক, সাহিত্যিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফফার চৌধুরী বলেছেন জঙ্গিবাদ নির্মূলে সু চিন্তা’র কার্যক্রমই অনন্য জিহাদ।

সম্প্রতি চট্টগ্রামের বিভিন্ন মাদ্রাসায় সুচিন্তা ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে জিনাত সোহানা চৌধুরীর নেতৃত্বে জাতীয় সংগীত গাওয়া, জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জয় বাংলা শ্লোগান,জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীদের সচেতন করা,জঙ্গিবাদ বিরোধী শপথ পড়ানো, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলা এই কার্যক্রম সম্পর্কে এই মন্তব্য করেছেন l

বিশেষ করে জিনাত সোহানা চৌধুরী মাদ্রাসায় জয় বাংলাস্লোগান ও জাতীয় সংগীত পড়ানোর এই দুরহ চ্যালেঞ্জিং কাজকে সবচেয়ে কঠিন জিহাদ হিসেবে আখ্যা দিয়ে এই কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেন আবদুল গাফফার চৌধুরী। ওয়েবিনার আলোচনায় আরো সংযুক্ত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রনেতা এস এম কামাল হোসেন, ইসলামী ঐক্য জোটের চেয়ারম্যান মিসবাউর রহমান চৌধুরী ও সাবেক ছাত্রনেতা, আইনজীবি প্রশান্ত ভূষণ বড়ুয়া l

সুচিন্তা চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়ক এডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরীর সঞ্চালনায় এই ওয়েবিনার আলোচনায় জঙ্গিবাদ, ধর্মীয় উগ্রপন্থা ও সহিংসতার বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট নিয়ে অতিথিরা  আলোচনা করেন l আলোচনায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের  সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেন, ‘ বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও প্রজ্ঞা র কারণে সহিংস ধর্মীয় গোষ্ঠীর পরাজয় ঘটেছে l মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একদিকে পরিপূর্ন ধার্মিক এবং সুগভীর ধর্মীয় মূল্যবোধ লালন করেন অন্য দিকে সম্পূর্ণ অসাম্প্রদায়িক l বাংলাদেশের ইতিহাসে ইসলামের সেবায় সবচেয়ে বেশি কাজ করেছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব এবং তাঁরই কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা l’

এস এম কামাল এই প্রসঙ্গে সারা দেশে মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র প্রতিষ্টার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘ এক যোগে এতোগুলো মসজিদ নির্মাণ এবং মুসল্লিদের জন্য কল্যাণকর পদক্ষেপ সারা বিশ্বে আর একটিও নাই ‘ l

ইসলামী ঐক্য জোটের চেয়ারম্যান মিসবাউর রহমান চৌধুরী সু চিন্তার জঙ্গিবাদ বিরোধী কার্যক্রমে মাদ্রাসার শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে সম্পৃক্ত করার উপর জোর দেন l ওয়েবিনার এর অপর আলোচক সাবেক ছাত্রনেতা ও আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ বড়ুয়া শ্রীলংকায় বৌদ্ধ ভিক্ষুর হাতে প্রধানমন্ত্রী নিহত ও আনন্দ মার্গীয় সন্ত্রাসীদের হাতে ইন্দিরা গান্ধীর কেবিনেট মন্ত্রী নিহত হওয়ার উদাহরণ দিয়ে বলেন ধর্মীয় চরমপন্থা সব দেশেই বিপর্যয়ের জন্য দায়ী l তিনি পাকিস্তানের প্রথম সামরিক আইন জারি করে মওদুদী র উস্কানিতে সংঘটিত কাদিয়ানী গণহত্যার বিচারের কথা  উল্লেখ করেন l

প্রধান অতিথি  আবদুল গাফফার চৌধুরী ধর্মীয় উগ্রবাদ দমন, যুদ্ধাপরাধীদের দন্ডদান ও খুনিদের শাস্তি র মত কঠিন সব রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সাহস ও নৈতিক শক্তির পরিচয় দেয়ার জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার প্রশংসা ও দীর্ঘায়ু কামনা করেন l  চৌধুরী সু চিন্তার মতই অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে রাজনীতির গুনগত পরিবর্তনে পিছিয়ে পড়া ছাত্রছাত্রীদের মূল ধারায় সম্পৃক্ত করার কাজে এগিয়ে আসার আহবান জানান।