থামছে না করোনার সংক্রমণ
হাজারের ঘরে শনাক্ত, চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যু দশজনের

হাজারের ঘরে

বাংলাদেশ মেইল ::

প্রতিদিনই চট্টগ্রামে করোনা শনাক্তের নতুন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে।  শনাক্তের উর্ধমুখি ধারায় লম্বা হচ্ছে করোনায় মৃত্যুর তালিকাও। রেকর্ডের পর রেকর্ড ভেঙে শনাক্তের সংখ্যা এখন হাজারের ঘরে।

গত ২৪ ঘণ্টায় (১৩ জুলাই) সাম্প্রতিক সময়ের সর্বোচ্চ  এক হাজার তিনজন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে চট্টগ্রামে । একই সময়ে মৃত্যুর তালিকায় যুক্ত হয়েছে নতুন ১০ জনের নাম। লকডাউনের বিধিনিষেধের মাঝেও করোনা শনাক্তে নতুন রেকর্ড এটি।

সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে মঙ্গলবার  (১৩ জুলাই) রাতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে তথ্য  অনুযায়ী মোট ২ হাজার ৮৬৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১০০৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে । পরীক্ষা বিবেচনায়  শনাক্তের হার ৩৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ।মৃত ১০ জনের মধ্যে ৪ জন নগরের ও ৬ জন উপজেলার।

গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ১০০৩ জনসহ চট্টগ্রামে  মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬৭ হাজার৭৮৭ জন। নতুন ১০ জনসহ এখন পর্যন্ত  মোট মৃতের সংখ্যা ৮০০ জন।

এদিন সরকারি বেসরকারি ১১ টি ল্যাবে সর্বমোট ২ হাজার ৬৪৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৯৫৫ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গেছে। যাদের ৬৩৬ জন নগরের ও ৩১৯ জন উপজেলার বাসিন্দা।

সোমবার ১২টি ল্যাবে ২ হাজার ৮৬৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪৫ জনের মধ্যে ৮১ জন, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ৭৫৭ জনের মধ্যে ১৯১ জন, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৪০৭ জনের মধ্যে ১৩৭ জন, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ২০৫ জনের মধ্যে ৭৮ জন, ৭১৩ জনের এন্টিজেন টেস্টে ২৩৫ জন, ইমপেরিয়াল হাসপাতালে ১৯২ জনের মধ্যে ৬৮ জন, শেভরণে ২২৪ জনের মধ্যে ৭৮ জন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৬৪ জনের মধ্যে ৩৬ জন, জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৩১ জনের মধ্যে ২৪ জন এবং ইপিক হেলথ কেয়ার ল্যাবে ১০৩ জনের মধ্যে ৬১ জনের করোনা পজেটিভ ফল পাওয়া যায়। এছাড়া কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাপসপাতালে ৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হলেও তা নেগেটিভ এসেছে।

মঙ্গলবার লোহাগাড়ায় ৮ জন, সাতকানিয়ায় ১৬ জন, বাঁশখালীতে ১২ জন, আনোয়ারায় ৩৪ জন, চন্দনাইশে ১৯ জন, পটিয়ায় ১৭ জন, বোয়ালখালীতে ৩২ জন, রাঙ্গুনিয়ায় ১০ জন, রাউজানে ২২ জন, ফটিকছড়িতে ২৭ জন, হাটহাজারীতে ৭৫ জন, সীতাকুণ্ডে ৪৫ জন, মিরসরাইয়ে ২৮ জন ও সন্দ্বীপে ৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও চট্টগ্রামে কমছে না করোনা সংক্রমণ। গেল বছরের ৩ এপ্রিল প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হবার প্রায় ১৬ মাস পর মঙ্গলবার (১৩ জুলাই)  শনাক্ত পৌছুলো  হাজারের ঘরে ।

হাজারের ঘরে/বিএম/আ.মা