সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মাণের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ

বাংলাদেশ মেইল ::

চট্টগ্রাম নগরীর সিআরবি এলাকায় হাসপাতাল নির্মাণের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে  বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড  ।বুধবার (১৪ জুলাই ) বিকেলে সিআরবির সাত রাস্তার মোড়ে এই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির আহবায়ক সাহেদ মুরাদ সাকুর সভাপতিত্বে ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোঃ সরওয়ার আলম চৌধুরী মনির পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ  সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর আহমদ।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিটের সহকারী কমান্ডার সাধন চন্দ্র বিশ্বাস, মঞ্জুরুল আলম, জেলা ইউনিটের কমান্ডের সহকারী কমান্ডার আবদুর রাজ্জাক, আহমেদ হোসেন, আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যাুনালের অন্যতম স্বাক্ষী কাজী নুরুল আবছার, সাতকানিয়া উপজেলা কমান্ডার আবু তাহের এলএমজি, চ্যানেল আই চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রধান চৌধুরী ফরিদ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক নওশাদ মাহমুদ রানা, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড.মোহাম্মদ ওমর ফারুক রাসেল, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড চট্টগ্রাম জেলা কমিটির আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার মশিউজ্জামান সিদ্দিকী পাভেল, সদস্য সচিব মো কামরুল হুদা পাভেল, চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সদস্য সচিব কাজী মুহাম্মদ রাজিশ ইমরান, যুগ্ম আহবায়ক মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন, চট্টগ্রাম মহানগর সদস্য ব্যাংকার আবু শাঈদ মাহমুদ রণী জয়নুদ্দিন জয়, মোশাররফ হোসেন প্রমুখ।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড চট্টগ্রাম মহানগর, জেলা, থানা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কমান্ডার মোজাফ্ফর আহমেদ বলেন, আমাদের দূভার্গ্য যে চট্টগ্রামে মুক্তিযুদ্ধের কোন স্মৃতি স্তম্ভ নেই। আমরা এটি নিয়ে অনেকবার বলেছি, আন্দোলনও করেছি। গত আট বছর আগে চট্টগ্রামের সার্কিট হাউজে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে জেলা প্রশাসন ও অন্যান্য নীতি-নির্ধারণীদের সাথে অনুষ্ঠিত এক সভায় শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানে একটি সৃতিসৌধ নির্মাণের দাবী করা হয়। কিন্তু তৎকালিন প্রশাসন পরিবেশের কথা চিন্তা করে সৃতিসৌধ নির্মাণ না করার অনুরোধ জানান এবং বীর মুক্তিযোদ্ধারা পরিবেশের কথা বিবেচনা করে তা মেনে নেয়। কিন্তু সম্প্রতি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ একটি বেসরকারি হাসপাতালের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে হাসপাতালসহ মেডিকেল কলেজ করার জন্য। বিষয়টি আমাদের জন্য অত্যন্ত দুঃখের। কেননা আমরা ৭১’এ যেভাবে দেশের কথা চিন্তা করে নিজের জীবনবাজি রেখে যুদ্ধে গিয়েছিলাম ঠিক তেমনি ভাবে পরিবেশ ও ভবিষ্যত প্রজন্মের কথা বিবেচনা করে আমরা সেইদিনের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছিলাম। আজ পুরো ৬ একর জমি দিয়ে দিল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। তাহলে বুঝা যাচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিরুদ্ধে এটি একটি গভীর ষড়যন্ত্র । মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ভূল তথ্য দিয়ে কারা এগুলো করছে তা বের করার দাবি জানাচ্ছি। একইসাথে যারা এই চুক্তির সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে দেখা হোক।

হাসপাতাল নির্মাণের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে এক বিক্ষোভ মিছিল নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে সিআরবিতে শেষ হয়। সমাবেশের পূর্বে চট্টগ্রামে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানে চট্টগ্রামে কেন্দ্রীয় স্মৃতিসৌধ নির্মাণের দাবীতে প্রস্তাবিত স্থানে ব্যানার লাগানো হয়।