কতুবদিয়ায় নোঙ্গর,ফিরে আসবে চট্টগ্রামে
সেন্টমার্টিনের মাঝপথে ইন্জিন রুমে আগুন, আতঙ্কিত বে ওয়ানের যাত্রীরা

বাংলাদেশ মেইল ::

ইঞ্জিন রুমে আগুন লাগার কারনে চট্টগ্রাম থেকে সেন্টমার্টিন রুটে চলা ‘বে ওয়ান ক্রুজ’র যাত্রীদের মধ্যে আতন্ক ছড়িয়ে পড়ে। শুক্রবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে এ ঘটনা ঘটে।

চট্টগ্রামের পতেঙ্গার ১৫ নম্বর ঘাট থেকে আগামী বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে জাহাজটি। ওই দিন রাত ১১টায় যাত্রা শুরু করে পরদিন সকাল ৭টা নাগাদ সেন্টমার্টিনে পৌঁছার কথা ছিল। চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়া শিপটির ইঞ্জিন রুমে রাত সাড়ে বারোটার দিকে আগুন লেগে যায়। জাহাজটিতে অন্তত পাঁচ শতাধিক পর্যটক রয়েছে।

তাৎক্ষণিক ভাবে ঘটনাটি যাত্রীদের জানানো না হলেও কয়েকজন যাত্রী ধোঁয়ার কুন্ডলী দেখে পেলেন। পরে কর্তৃপক্ষ আগুন লাগার বিষয়টি স্বীকার করে মাইকে ঘোষনা দিয়ে সবাইকে ধৈর্য ধরতে অনুরোধ করেন৷আগুন লাগার বিষয়টি গোপন করার চেস্টা করেন কর্তৃপক্ষ, এতে ক্ষুব্ধ হন জাহাজে থাকা যাত্রীরা।

এক পর্যায়ে ফায়ার বিগ্রেড ও আম্বুলেন্সকে খবর দিয়ে নেবার জন্য বিক্ষোভ করতে থাকেন শীপটিতে থাকা যাত্রীরা। এরপরই সবাইকে লাইফ জ্যাকেট সরবরাহ করেন জাহাজটির কর্তৃপক্ষ। রাত দেড়টার দিকে কুতুবদিয়ার কাছাকাছি স্থানে জাহাজটি নোঙ্গর’ করে রাখা হয়।

জাহাজে থাকা যাত্রী আসিফ ইকবাল জানান, এই জাহাজটির ইঞ্জিন রুমে হঠাৎ আগুন ধরে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর সেটি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এ ঘটনায় এক জন ক্রুসহ দুজন পর্যটক ‘সামান্য’ আহত হয়েছেন ।

এই জাহাজে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক রয়েছেন বলে জানিয়েছেন  জাহাজটিতে থাকা কয়েকজন যাত্রী।

জাহাজে থাকা যাত্রী সৈকত জানান, পতেঙ্গা থেকে ছাড়ার এক দেড় ঘন্টা পরেই জাহাজে হঠাৎ ছুটাছুটি শুরু হয়। তখন আমরা কোন কারন জানতে পারছিলাম না। পরে কর্তৃপক্ষ মাইকে ঘোষণা দেন আগুন লাগার বিষয়ে। বে ওয়ান ক্রুজের ক্যাপ্টেনসহ ক্রুরা নিরাপদে রয়েছেন -বলেও জানানো হয় ঘোষণায় ‘।

দেশের পর্যটন শিল্পের বিকাশে চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি সেন্টমার্টিনের উদ্দেশে যাত্রা করা প্রথম প্রমোদতরী এই বে ওয়ান ক্রুজ।বেসরকারি প্রতিষ্ঠান কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স লিমিটেড বিলাসবহুল এই প্রমোদতরীটি বাণিজ্যিকভাবে পরিচালনা করছে।

জাপান থেকে আমদানি করা জাহাজটি অন্তত ২৯ বছরের পুরনো। প্রায় চার বছর আগে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়া এক সময়ের সালভিয়া মারুকে মেরামত করে ‘বে ওয়ান ক্রুজ’ নাম দিয়ে চট্টগ্রাম থেকে সেন্টমার্টিন রুটে চালু করা হয়। প্রচলিত আইন অনুযায়ী ২৫ বছরের পুরনো জাহাজ সাগরে ভাসানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও জাহাজটির মালিক কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স লিমিটেডের কর্ণধার এম এ রশিদ সাংবাদিকদের এর আগে জানান, এরকম আইন শুধু বাংলাদেশেই আছে। বিদেশে প্যাসেঞ্জার জাহাজ ৫৫-৬০ বছরের পুরনো হলেও চলে। কার্গো (পণ্যবাহী) জাহাজ ২৫ বছরের পুরনো হলে নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু প্যাসেঞ্জার জাহাজে সমস্যা হয় না।

শুক্রবার রাতে আগুন লাগার ঘটনায় কোন ধরনের যান্ত্রিক ক্রুটি মেলেনি বলে দাবি করেছেন কর্তৃপক্ষ। বড় ধরনের কোন দূর্ঘটনা থেকে বেঁচে যাওয়া জাহাজ যাত্রীদের সবাই শেষ পর্যন্ত নিরাপদে আছেন বলে জানিয়েছেন ‘বে ওয়ান ক্রুজ’ কর্তৃপক্ষ। সেন্টমার্টিন না গিয়ে বেলা বারোটার দিকে জাহাজটি যাত্রীদের নিয়ে চট্টগ্রামে ফিরে আসবে।