চট্টগ্রামে দিন দিন যক্ষ্মা আক্রান্ত রোগী বাড়ছে

যক্ষ্মা
যক্ষ্মারোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অনেকেই জ্বর, সর্দি, কাশি নিয়ে বাড়িতে বসে থাকেন। করোনা হতে পারে ভেবে কেউবা হাসপাতালে আসেন না। এভাবে অবহেলা করলে খারাপ কিছু ঘটতে পারে।  চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সেখ ফজলে রাব্বি  বলেন,  যক্ষ্মাও একটি সংক্রামক রোগ। করোনাভাইরাসের মতো এটিও ফুসফুসকে সংক্রমিত করে। তিন সপ্তাহ বা তার অধিক সময় কাশি হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত ওষুধ গ্রহণ করতে হবে।

চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী বলেন, যক্ষ্মা নিয়ে আমাদের প্রচার-প্রচারণার অব্যাহত আছে। তারপরও সাধারণ মানুষকেই সচেতন হতে হবে বেশি। কোনভাবেই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ গ্রহণ করা যাবে না।এদিকে বৃহস্পতিবার (২৪ মার্চ) পালন করা হচ্ছে বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস। দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করেছে জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয়, ‘বিনিয়োগ করি যক্ষ্মা নির্মূলে, জীবন বাঁচাই সবাই মিলে’।

চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে বেলুন উড়িয়ে ও শোভাযাত্রার মাধ্যমে বিভাগীয় পর্যায়ে দিবসটি উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর। পরে অনুষ্ঠিত হয় একটি আলোচনা সভা। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য)। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সেখ ফজলে রাব্বি ও বিভাগীয় টিবি এক্সপার্ট (এনটিপি) ডা. রাজীব পালিত। সভাপতিত্ব করেন সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী।