অর্ধেক লটারী, অর্ধেক বিক্রি
চসিকের দরপত্রে আবারো অনিয়মের অভিযোগ

বাংলাদেশ মেইল :::

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন প্রকল্পের দরপত্রে আবারও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি ২৫ লটের দরপত্রের বিপরীতে ১৩ টি কাজ লটারীর মাধ্যমে দেয়া হলেও,  বাকী বারোটি কাজ বিক্রি করা হয়েছে চড়া কমিশনে। সুত্রমতে, ৭ শতাংশ ‘পার্সেন্টিজ’ নিয়ে পছন্দের বারোটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কাজ বিক্রি করা হয়েছে।

ঠিকাদারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শহিদুল আলম, প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী জসিমউদদীনসহ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের  পুরোনো সিন্ডিকেট টেন্ডার বিক্রির কাজ পুরোদমে শুরু করেছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে নিয়োগকৃত নতুন প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী  গোলাম ইয়াজধানীর সাথে ‘টেন্ডার বিক্রি’র নানা ইস্যুতে সিন্ডিকেটের  সম্পর্কের টানাপোড়েনের কথা জানা গেছে।

দরপত্রে অংশগ্রহণকারী ঠিকাদারদের সাথে কথা বলে জানা যায় দশ শতাংশ কম দরে দেয়া হয়েছে সবকটি কাজ। এরমধ্যে, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ঠিকাদার সমিতিকে দেয়া হয়েছে একটি কাজ। সুত্রমতে, সেই কাজ অন্য ঠিকাদারের কাছে বিক্রি করে ঈদে মিলাদুন্নবীর খরচ যোগাবেন তারা।

প্রতিবেদকের হাতে আসা ভিডিওতে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের একজন ঠিকাদারকে টেন্ডার বিক্রি ও পার্সেন্টিজের বিষয়ে কথা বলতে দেখা যায়। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ঠিকাদারদের একাধিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

চসিকের প্রকৌশল বিভাগের  তথ্যমতে, মেসার্স শাকিল এন্টারপ্রাইজ পেয়েছে ১১ নং ওয়ার্ডের কাজ, মেসার্স আবেদীন এন্টারপ্রাইজ  পেয়েছে ১২ নং ওয়ার্ডের কাজ। মেসার্স এসএস এন্টারপ্রাইজ পেয়েছে ১৩ নং ওয়ার্ডের কাজ, মেসার্স নাজিম এন্ড ব্রাদার্স পেয়েছে পেয়েছে ৬ নং ওয়ার্ডের কাজ, মেসার্স এ কে সিন্ডিকেট পেয়েছে ৬ নং ওয়ার্ডের আরেকটি কাজ। মেসার্স এম হুদা কর্পোরেশনকে দেয়া হয়েছে ৩১ নং ওয়ার্ডের কাজ, মেসার্স ইসলাম এন্ড ব্রাদার্স পেয়েছেন ৩৬ নং ওয়ার্ডের কাজ। মেসার্স ব্রাদার্স এসোসিয়েটস ৩৪ নং ওয়ার্ডের কাজ পেয়েছেন। মেসার্স রাজ কর্পোরেশন পেয়েছেন ১০ নং ওয়ার্ডের কাজ। মেসার্স আরই- এফসি (জেবি) পেয়েছে ৩০ নং ওয়ার্ডের উন্নয়ন কাজ। মেসার্স রিদিকা এন্টারপ্রাইজকে দেয়া হয়েছে ৩০ নং ওয়ার্ডের উন্নয়ন কাজ। মেসার্স শাহ জব্বারিয়া ট্রেডিং  পেয়েছেন ১১ নং ওয়ার্ডের কাজ। মেসার্স আরএম ইন্জিনিয়ারিং ‘কে দেয়া হয়েছে ২৬ নং ওয়ার্ডের কাজ।

এছাড়া, আকিল এন্টারপ্রাইজ, মার্মা এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স জেএন এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স এএন কর্পোরেশন, মেসার্স এআলী-পি (জেবি), মেসার্স এবি-হক ব্রাদার্স, মেসার্স ই এন্ড পি (জেবি), মেসার্স ব্রাদার্স এসোসিয়েটস, মেসার্স ডিআর ট্রেডিং, মেসার্স আবির এন্টারপ্রাইজ, আবির এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স রাঙামাটি ট্রেডার্স এসএসই (জেভি), মেসার্স তানজিল এন্টারপ্রাইজ পেয়েছেন বাকী তেরটি দরপত্রের কাজ।

ঠিকাদারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গোপনে পার্সেন্টিসের মাধ্যমে কাজ দেওয়া হলে প্রতিযোগিতামুলক দর, অভিজ্ঞ প্রতিষ্ঠান যেমন নিশ্চিত করা যায় না, তেমনিভাবে  নিম্মমানের কাজ করা ছাড়া ঠিকাদারদের কোন উপায় থাকেনা। বর্তমানে দশ শতাংশ কম মুল্যে কাজ নেয়ার সাথে সাথে সাত শতাংশ   পার্সেন্টিজ (ঘুষ) , সরকারি  ভ্যাট-ট্যাক্স, অফিস খরচ ( ঘুষ) মিলিয়ে প্রকল্পের বাজেটের ৩৪ শতাংশ বাদ দিয়ে কাজ করতে হবে। এছাড়া নির্মান সামগ্রীর দাম বৃদ্ধির বর্তমান পরিস্থিতিতে নিম্মমানের কাজ করা ছাড়া কোন উপায় নেই।

এরআগে, ইজিপিতে অভিনব জালিয়াতি করে ৯ শতাংশ বেশি দরে একটি প্রকল্পের কাজ দেবার বিষয় জানাজানি হলে ১৯শে সেপ্টেম্বর ‘রি টেন্ডার ‘ আহবান করে চসিক। সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে গোপনে সিডিউলের দর পরিবর্তনের অভিযোগ উঠে। ফলে, দরপত্রে অংশ নেয়া সব ঠিকাদারদের দেয়া দর নন রেসপনসিভ হয়ে যায়।

পিপিআর-২০০৮ এর বিধি ১২৭ এর ৩ ধারায় বলা হয়েছে যদি কোন দুর্নীতি, প্রতারণা চক্রান্ত বা জবরদস্তিমুলক কার্যে কোন ব্যক্তি জড়িত হয় তাহা হইলে ক্রয়কারী উক্ত কর্মকাণ্ডে জড়িত হওয়া বা থাকার বিষয়ে লিখিতভাবে ব্যাখ্যা প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে নির্দেশ প্রদান করিবে। কাজ দেবার ক্ষেত্রে  লটারী কিংবা টেন্ডার প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতার তদারকির নেই স্থানীয়  সরকার মন্ত্রণালয়ের।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি সাড়া দেন নি। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশল বিভাগের কোন কর্মকর্তাও এই বিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ। তবে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে দরপত্রের কাজ বিক্রির টাকা পৌঁছে যাবে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের কাছে।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কোনো দায়িত্বশীল কর্মকর্তা এ বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি না হলেও প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী গোলাম ইয়াজদানী জানান, ‘অনিয়মের মাধ্যমে কোন দরপত্রের কার্যাদেশ ইস্যু করবেন না তিনি। ‘