চাঁদাবাজি মামলার আসামি হলেন চসিকের কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্ত

বাংলাদেশ মেইল::

ফুটপাতের হকারদের কাছ থেকে চাঁদাবাজি করে মামলার আসামি হয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্ত।  সোমবার (২৪ অক্টোবর) টেরীবাজার, আন্দরকিল্লা হকার সমিতির সাধারণ সম্পাদক লোকমান হাকিম এ মামলা দায়ের করেন প্রথম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট জুয়েল দেবের আদালতে। আদালত শুনানি শেষে মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) দায়িত্ব দিয়েছেন।

মামলায় রুমকি সেনগুপ্ত বাদে অন্যান্য আসামিরা হলেন, অপু ধর রাজ (২৮), নগরের কোতোয়ালী থানাধীন রহমতগঞ্জ নিউ টাউন আবাসিক এলাকার আবুল ফজল সওদাগরের ছেলে মোহাম্মদ ইসমাইলসহ (৪০) অজ্ঞাত আরো পাঁচ থেকে ছয় জন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাদীপক্ষের আইনজীবী বিশ্ব শীল বলেন, ‘টেরিবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক লোকমান হাকিম বাদী হয়ে হকারদের কাছ থেকে চাঁদাবাজির অভিযোগে রুমকি সেনগুপ্তের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন। আদালত মামলা গ্রহণ করে পিবিআইকে তদন্তের আদেশ দেন।’

অভিযোগ উঠে, আন্দরকিল্লা দেওয়ান বাজার ও চকবাজার ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্ত নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই হকারদের উপর জুলুম ও নির্যাতন শুরু করেন। হকারদের কাছে চাঁদার দাবিতে স্বয়ং তিনি নিজে গুন্ডা বাহিনী নিয়ে হাজির হন। হকারের প্রকারভেদে চাঁদা দাবি করেন। এক হাজার থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত দাবীকৃত চাঁদা তাকে দিতেই হবে। অন্যথায় চাঁদা ছাড়া ব্যবসা করা যাবে না বলে হুমকি দেন তিনি। অপারগতা স্বীকার করলে হকারদের মালপত্র রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হউ। গুণ্ডাবাহিনী দিয়ে মারধরের নজিরও রয়েছে।

একই ধারাবাহিকতায় গত ২০ অক্টোবর সন্ধ্যার দিকে নগরের আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদের দ্বিতীয় গেইটের সামনে ফল বিক্রেতা হাসান আলীর সাত হাজার টাকার মালামাল নষ্ট করে কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্তসহ মামলার অন্যান্য আসামিরা। এ সময় তারা হাসান আলীর কাছ থেকে ২ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন। কিন্তু হাসান আলী এ টাকা দিতে অস্বীকার করলে রুমকিসহ তার গুন্ডাবাহিনী মালপত্র রাস্তায় ছুড়ে ফেলে দেন। একইভাবে সাব-এরিয়া বাজারের হকারদের কাছ থেকে এক হাজার টাকা করে চাঁদা নেন এ চক্রটি।

নীরবে-নিভৃতে নিম্নআয়ের মানুষের উপর অত্যাচার চালিয়ে যাচ্ছেন রুমকি সেনগুপ্ত। এছাড়া দাবীকৃত চাঁদা না দিলে হকারদের ব্যবসা করতে দেবেন না বলে হুমকি দেন তিনি। তার এমন অন্যায়ের প্রতিবাদে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন টেরীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক লোকমান হাকিম। আদালতে উপস্থিত হয়ে দন্ডবিধির ৪২৭/৩৮৫/৫০৬(২) ধারায় আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন তিনি।