বিএম ডিপোতে আবারও আগুন

বাংলাদেশ মেইল ::

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডেরর বিএম কনটেইনার ডিপোতে আবারও আগুন লেগেছে। মঙ্গলবার (১৩ ডিসেম্বর) বিকাল সোয়া ৩টায় এই ঘটনা ঘটে। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে ।

সীতাকুণ্ডের কুমিরা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন কর্মকর্তা মো. ফিরোজ মিয়া জানান, সোয়া ৩টায় বিএম কনটেইনার ডিপোর ঝুট শেডে আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি গাড়ি আগুন নেভানোর কাজ শেষ করেছে।

সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘ বিএম কনটেইনার ডিপোর ঝুট শেডে আগুন লেগেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে পুলিশও ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভাতে সাহায্য করে। আগুন লাগার ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি। ‘

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের এই বিএম কন্টেইনার ডিপোতে গেল জুন মাসে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা সারাদেশে ইতিহাস সৃষ্টি করে। অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণ ভয়াবহতা থামাতে গিয়ে ফায়ার সার্ভিসের বার কর্মীও নিহত হয়। অগ্নিকাণ্ডের কারণ তদন্তে জেলা প্রশাসন, কাস্টমস, ফায়ারসহ ছয়টি সংস্থা পৃথক পৃথক তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিলেও সেই অগ্নিকান্ডের সুস্পষ্ট কারণ নির্ণয় করা সম্ভব হয় নি। বিভিন্ন সংস্থা তাদের তদন্ত রিপোর্টে বলেছে বিএম কনটেইনার ডিপো কর্তৃপক্ষের গাফেলতির কারণে ভয়াবহ সেই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছিলো। বিএম কনটেইনার ডিপোতে রাখা ‘হাইড্রোজেন পার অক্সাইড’ থেকে আগুন বিস্ফোরণে রুপ নেয়। ভয়াবহ সেই অগ্নিকান্ডের পর ডিপো কর্তৃপক্ষ অত্যাধুনিক অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা স্থাপন কথা জানিয়েছিলো।

ডেনিস প্রতিষ্ঠানের সাথে জয়েন্ট ভেঞ্চারের মাধ্যমে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের শীতলপুরে বেসরকারি এই কনটেইনার ডিপো স্থাপন করেছিলেন শিল্প প্রতিষ্ঠান ‘ স্মার্ট গ্রুপ’। এই প্রতিষ্ঠানে ছয়মাসে ব্যবধানে আবারও আগুন লাগার ঘটনা রহস্যজনক বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে, আগুন ডিপোতে থাকা কনটেইনারের কোন ক্ষতি হয় নি বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, গত ৫ জুন রাতে সীতাকুণ্ডের কদমরসুল এলাকার এই কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৫০ জনের বেশি মানুষ নিহত হন। আহত ও পঙ্গুত্ব বরন করেছেন শতাধিক মানুষ।