চট্টগ্রাম শাহী জামে মসজিদ বিল সংসদে পাস

শাহী জামে

বাংলাদেশ মেইল::

চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লার শাহী জামে মসজিদের ব্যবস্থাপনা, রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়ন কার্যক্রম ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে করতে একটি আইন করার প্রস্তাব অনুমোদন করেছে জাতীয় সংসদে। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান সোমবার (৩০ জানুয়ারি) ‘চট্টগ্রাম শাহী জামে মসজিদ বিল, ২০২৩’ পাসের জন্য সংসদে উত্থাপন করে। জনমত যাচাই, বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও সংশোধনী প্রস্তাবগুলো নিষ্পত্তি শেষে কণ্ঠভোটে বিলটি পাস হয়।

এতদিন অধ্যাদেশের আওতায় এ মসজিদের দেখভাল করে আসছিল ইসলামিক ফাউন্ডেশন। তা বাতিল করে এখন পূর্ণাঙ্গ আইন করা হচ্ছে। বিলে বলা হয়েছে, চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লায় চট্টগ্রাম শাহী জামে মসজিদের ব্যবস্থাপনা, রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়ন কার্যক্রম সরকারের পক্ষে পরিচালনা করবে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। মসজিদের নামে একটি তহবিল থাকবে। তাতে সরকার, কোনো ব্যক্তি বা সংস্থার দেওয়া অনুদান, দান বা মসজিদের সম্পত্তি থেকে পাওয়া আয় জমা থাকবে।

কোনো ব্যক্তি মসজিদের সম্পত্তি বেআইনিভাবে দখল করলে বা দখল করার উদ্যোগ নিলে বা তার দখল, জিম্মা বা নিয়ন্ত্রণাধীন কোনো সম্পত্তি ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কাছে যথাযথভাবে হস্তান্তর না করলে তা  হবে অপরাধ। এ অপরাধের শাস্তি সর্বোচ্চ দুই বছরের কারাদণ্ড বা অর্থদণ্ড অথবা উভয়দণ্ড। বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সংবলিত বিবৃতি বলা হয়েছে, ১৬৬৭ সালে মোঘল সম্রাট আওরঙ্গজেবের শাসনামলে শাহী জামে মসজিদ নির্মাণ করা হয়। ১৮৫৭ সালে এ মসজিদের সব সম্পত্তি খাঁন বাহাদরি হামিদুল্লাহ খাঁনের ওয়াকফ এস্টেটের অন্তর্ভুক্ত হয়।

পরে আদালতের রায়ে ১৯৬২ সালে চট্টগ্রাম শাহী জামে মসজিদ ওয়াকফ ট্রাস্টে রূপান্তিরিত হয়। ১৯৮৬ সালে ‘চট্টগ্রাম শাহী জামে মসজিদ অর্ডিন্যান্স, জারি করে এ মসজিদের দায়িত্ব ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপর ন্যাস্ত করা হয়। এখন সেই অর্ডিন্যান্স বাতিল করে স্বতন্ত্র আইন করার প্রস্তাকে সায় দিল জাতীয় সংসদ।