বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনীদের সাজা কার্যকর করতে পারলে দেশ কলঙ্কমুক্ত হবে- খায়রুজ্জামান লিটন

আল আমিন, নাটোর প্রতিনিধি :::

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বিদেশে পলাতক আসামী ও ২১শে আগস্টের গ্রেনেড হামলার মাস্টারমাইন্ড দন্ডপ্রাপ্ত আসামী তারেক জিয়াকে দেশে ফিরিয়ে এনে সাজা কার্যকর করতে পারলে দেশের ইতিহাস কলঙ্কমুক্ত হবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এটা আমাদের বাস্তবায়ন করতেই হবে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু আমাদের একটি মানচিত্র, একটি পতাকা, একটি দেশ দিয়েছেন। তিনি শুধু হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি নয়, তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। ১৫ আগস্ট একাত্তরের পরাজিত শক্তিরা বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের স্বপরিবারে হত্যা করে। শোকবাহ আগস্ট মাসে সারাদেশে নানা কর্মসূচিতে আমরা বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করি। কোন কিছু করেই জাতির পিতার ঋণ পরিশোধ করা যাবে না।

আজ শনিবার বিকেলে কানাইখালী পুরাতন বাস স্ট্যান্ডে জেলা ছাত্রলীগ আয়োজিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৮তম শাহাদাৎ বার্ষিকী স্মরণে এবং বঙ্গবন্ধু হত্যার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বিদেশে পলাতক আসামী ও ২১শে আগস্টের গ্রেনেড হামলার মাস্টারমাইন্ড দন্ডপ্রাপ্ত আসামী তারেক জিয়াকে দেশে ফিরিয়ে এনে শাস্তি কার্যকর করার দাবিতে এক শোক সভা ও ছাত্র-গণজমায়েত অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র লিটন বলেন, জাতির পিতা ৭ই মার্চ ঐতিহাসিক ভাষণ দেন। এরপর বাঙালি জাতিকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে জাতীয় চার নেতা মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়ে দেশ স্বাধীন করেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যায় সামনে ছিল খন্দকার মোশতাক, আর পেছনে ছিল জিয়াউর রহমান, চক্রান্তে যুক্ত ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কখনো বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায়নি এবং এখনো ভালো চায়না।

তত্ত্ববধায়ক সরকার প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, নির্বাচন আসলেই বিএনপি-জামায়াত সহ সরকারবিরোধী গোষ্ঠী নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। তারা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি তোলে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হওয়ার কোন সুযোগ নেই। দেশের সর্বোচ্চ আদালত রায় দিয়েছে, দেশে আর তত্ত্ববধায়ক সরকারের দরকার নেই।

খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, বিএনপির মির্জা ফখরুল লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়া বাইরে একটি কথাও বলেন না। লন্ডনে বসে তারেক জিয়া আওয়ামী লীগ সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশের সুবিধা ভোগ করে অনলাইনে মির্জা ফখরুকে যা বলেন, সেই বক্তব্যই সারাদিন বলে বেড়ান মির্জা ফখরুল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে দৃশ্যমান উন্নয়ন করেছেন। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনাকে আবারো ক্ষমতায় আনতে হবে। যতই দুর্যোগ আসুক, যতই বাধা আসুক, আমরা সব সময় শেখ হাসিনার সাথেই আছি। “যতদিন শেখ হাসিনার হাতে দেশ, পথ হারাবে না বাংলাদেশ”।

সভায় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফরহাদ বিন আজিজ এর সভাপতিত্বে এতে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্যে দেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নাটোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস, সাবেক ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ আহাদ আলী সরকার, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য রত্না আহমেদ, নাটোর পৌর সভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি, জজ কোর্টের পিপি এ্যাডঃ সিরাজুল ইসলাম প্রমূখ ।

সমাবেশের প্রধান বক্তা নাটোর জেলা আওয়ামী লীগে সাধারন সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান বলেন, লন্ডনে বসে তারেক জিয়া দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, বিএনপি দেশের এই অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করতে চায়। তারা নির্বাচন চায় না, তারা নির্বাচনকে ভুন্ডুল করতে চায়। তাদের নির্বাচন করার যোগ্যতা নাই, কারণ তাদের নেতাই নাই। আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে বিএনপির সেই ষড়যন্ত্রকে প্রতিহত করবো। সভা সঞ্চালনা করেন নাটোর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শাহিন।

বাংলাদেশ মেইল /নাদিরা শিমু/NS