কটিয়াদীতে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বসতবাড়ি নির্মাণ,বাদীকে হত্যার হুমকি

বাংলাদেশ মেইল ::::

কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি,

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার আচমিতা গ্রামে আদালতে অবমাননা তথা ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বসতবাড়ি নির্মাণ ও মামলার  বাদীকে হত্যার হুমকির অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়,উপজেলার পূর্ব ভিটাদিয়া গ্রামের মৃত ছন্দু মিয়ার ছেলে আলমগীরের পরিবারের সাথে আচমিতা মৌজার আরএস-২৬৮ নং খতিয়ানের ৮৭২ দাগের ৫৪ শতাংশ জমি নিয়ে আচমিতা গ্রামের নজরুল ইসলাম গংদের বিরোধ চলিয়া আসিতেছে।

এ বিষয়ে আলমগীর হোসেনের অনুপস্থিতিতে  স্ত্রী মোছাঃ আমেনা খাতুন বাদী হয়ে কিশোরগঞ্জ জেলা অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৬জনকে বিবাদী করে একটি মামলা দায়ের করেন।যাহার নংঃ৫২৫/২০২৪।

মামলার বিবাদীরা হলেন-  নজরুল ইসলাম(৪০),আসাদ(৪৫),ফজলু(৩৫),গোলাপ(৪২),মৃত নায়েব আলীর ছেলে হযরত আলী(৫২) ও মৃত ইদ্রিছ আলীর স্ত্রী মোছাঃ ফেরদৌসি আক্তার ওরফে পারভীন। এ বিষয়ে আলমগীর হোসেনের স্ত্রী মোছাঃ আমেনা খাতুন জানান,আমার শশুরের নামীয় খতিয়ান অনুযায়ী ওয়ারিশ সূত্রে এ সম্পত্তির মালিক আমার স্বামী।কিন্ত বিবাদীরা দীর্ঘদিন যাবত  জোরপূর্বক আমাদের জমি ভোগদখল করিয়া আসিতেছে। আমরা এ জমিতে গেলে বিবাদীরা আমাদের উপড় আক্রমণ করে।বিভিন্ন সময় আমাদের হত্যার হুমকি দেয়।পরে আদালতে মামলা করেছি।আদালত এই জমিতে ১৪৪ধারা জারি করেছে অথচ নজরুল ইসলাম গংরা আদালতের নির্দেশ অমান্য করে বসতবাড়ি নির্মাণ করছে।

এমতাবস্থায় প্রশাসনের কাছে সঠিক বিচার প্রার্থনা করছি। এ বিষয়ে আচমিতা ইউপির সদস্য শোয়েব জানান,এ বিষয়ে আমরা বেশ কয়েকবার শালিশ/দরবার করেছি।সকল দলিলাদির ভিত্তিতে দেখা যায় এই জমির প্রকৃত মালিক মৃত ছন্দু মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেন কিন্ত নজরুল গং শালিশ/দরবারের রায় মানে না।এমতাবস্থায় প্রশাসনের কাছে একটাই অনুরোধ বিষয়টি সঠিক তদন্তে মাধ্যমে যেন সমাধান করা হয়।

এ বিষয়ে আচমিতা ইউপির চেয়ারম্যান মতিউর রহমান জানান,আমার জানামতে দীর্ঘদিন যাবত এ বিষয়ে দু’পক্ষের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধ চলিয়া আসিতেছে। যেহেতু আদালতে মামলা হয়েছে সেহেতু মাননীয় আদালতের কাছে একটাই অনুরোধ থাকবে বিষয়টি যেন সঠিক তদন্তের ভিত্তিতে সমাধান করা হয়।

এ বিষয়ে কটিয়াদী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ দাউদ জানান, তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।