প্রস্তুতি ভালো, কাঁচা চামড়ার দামও মিলবে বেশি

বাংলাদেশ মেইল::

কাঁচা চামড়া কেনা নিয়ে ব্যবসায়ীদের এবার ভালো প্রস্তুতি রয়েছে। অর্থের সংকটও এবার তেমন হবে না। আন্তর্জাতিক বাজার পর্যালোচনা করে চামড়ার দাম সরকার কিছুটা বাড়িয়ে নির্ধারণ করায় মাঠ পর্যায়েও এবার চামড়ার দাম ভালো পাওয়া যাবে৷ আর ৫ থেকে ৬ ঘণ্টার মধ্যে লবণ দিয়ে চামড়া সংরক্ষণের কথা বলা হচ্ছে মৌসুমি ব্যবসায়ীদের।

জানতে চাইলে কাঁচা চামড়া ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আফতাব খান বলেন, ‘সারাদেশ ও পোস্তার কাঁচা চামড়া ব্যবসায়ীরা প্রস্তুতি নিচ্ছে। লবণসহ আনুষঙ্গিক বিষয় নিয়ে তারা প্রস্তুত। কিছু কিছু ট্যানারি মালিক আংশিক পেমেন্ট করেছে। আজও অনেকে পেমেন্ট করার কথা। অর্থ নিয়ে এখনও কিছুটা আশঙ্কা রয়েছে। টাকা ও অত্যাধিক গরমই এখন আমাদের জন্য১ চ্যালেঞ্জ। আমরা মৌসুমি ব্যবসায়ীদের বলছি ৫ থেকে ৬ ঘণ্টার মধ্যে চামড়া লবণজাত করতে।’

তিনি বলেন, ‘বাজারে এবার চামড়ার দাম বেড়েছে। আশা করা যায় দামটা এবার সঠিক পাওয়া যাবে। মৌসুমি ব্যবসায়ীরা ৫ থেকে ৬ ঘণ্টার মধ্যে লবণজাত করতে পারলে গুণগত মান থাকবে৷ এতে চামড়ার দাম পাওয়া যাবে।’

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ সারাবাংলাকে বলেন, ‘চামড়া কেনা নিয়ে আমাদের প্রস্তুতি ভালোই। চামড়া কেনার জন্য এরইমধ্যে ব্যবসায়ীরা লবণ ও টাকা নিয়ে প্রস্তুত রয়েছে। এ বছর কোটি খানেক চামড়া কেনা হবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি। টাকা পয়সা নিয়ে তেমন কোনো সমস্যা হবে না। আজও যেহেতু ব্যাংক খোলা রয়েছে যাদের হাতে অর্থ নেই তারা হয়তো অর্থ পাবে। আশা করা যাচ্ছে চামড়া কেনায় অর্থের সংকটও হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘শেষ মুহূর্তে এসে চামড়া ও ট্যানার শিল্পকে লকডাউনের আওতাবহির্ভূত রাখার সিদ্ধান্ত খুবই সময়উপযোগী হয়েছে৷ এর ফলে চামড়া পরিবহন ও পক্রিয়াজাত করা নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না।’

এদিকে, গতবারের চেয়ে এবার গরুর চামড়ায় প্রতি বর্গফুটে ৫ টাকা আর ছাগলের চামড়ায় ২ টাকা বেড়েছে। ঢাকায় এবার লবণযুক্ত গরুর চামড়ার দাম প্রতি বর্গফুট ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। গত বছর যা ছিল ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। একই চামড়া ঢাকার বাইরে প্রতি বর্গফুট ৩৩ থেকে ৩৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে; গত বছর যা ছিল ২৮ থেকে ৩২ টাকা। এ ছাড়া সারাদেশে খাসির চামড়া প্রতি বর্গফুট ১৫ থেকে ১৭ টাকা; গত বছর ছিল ১৩ থেকে ১৫ টাকা। পাশাপাশি প্রতি বর্গফুট ছাগলের চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১২ থেকে ১৪ টাকা, গত বছর যা ছিল ১০ থেকে ১২ টাকা। সব ক্ষেত্রেই দাম বাড়ানো হয়েছে।

বছরভিত্তিক পর্যালোচনায় দেখা গেছে— ২০১৪ সালে কোরবানির গরুর লবণযুক্ত চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছিল ৭৫ থেকে ৮০ টাকা। পরের বছর একবারে ৩৭ দশমিক ৫ শতাংশ কমিয়ে ৫০ টাকায় নামিয়ে আনা হয়। ২০১৬ সালে এ চামড়ার দাম ৫০ থেকে ৫৫ টাকায় নির্ধারণ করা হয়। ২০১৮ সালে আবারও কমিয়ে তা ৪৫ থেকে ৫০ টাকায় নির্ধারণ করা হয়। তবে ২০১৯ সালে এ দর অপরিবর্তিত থাকলেও চামড়া ব্যবসায়ীরা তা মানেননি। ২০২০ সালে ঢাকায় লবণযুক্ত গরুর চামড়ার দাম প্রতি বর্গফুট ৩৫ থেকে ৪০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ২৮-৩২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া সারা দেশে খাসির চামড়া ১৩-১৫ আর বকরির চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ থেকে ১২ টাকা।